আগামী ৫ সেপ্টেম্বর আকাশে উড়বে বিমানের ড্রিমলাইনার আকাশবীণা

বিমানের জেনারেল ম্যানেজার (জনসংযোগ) শাকিল মেরাজ নিশ্চিত করে বলেন বাণিজ্যিকভাবে যাত্রী নিয়ে আগামী ৫ সেপ্টেম্বর আকাশে উড়বে বিমানের ড্রিমলাইনার আকাশবীণা। শাহজালালের ভিআইপি টার্মিনাল সংলগ্ন মাঠে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হবে। ওই দিন সন্ধ্যায় আকাশবীণা ঢাকা-কুয়ালালামপুরে প্রথম বাণিজ্যিক ফ্লাইট যাত্রা করবে বলে জানান তিনি।

তিনি বলেন, আগামী ৫ সেপ্টেম্বর দুপুর ১২টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আকাশবীণার বাণিজ্যিক যাত্রার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন।

বিমানের মার্কেটিং বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, প্রথম ফ্লাইটের সব টিকিট বিক্রি শেষ।

বিমান সূত্রে জানা গেছে, এয়ারক্রাফটের আসন সংখ্যা ২৭১টি। এর মধ্যে বিজনেস ক্লাস-২৪টি, ইকোনমি-২৪৭টি।

বিজনেস ক্লাসের আসনগুলো বানিয়েছে অ্যাসটেলা। ইকোনমি ক্লাসের আসনগুলো হেইকোর বানানো।

বিজনেস ক্লাসের ২৪টি আসন ১৮০ ডিগ্রি পর্যন্ত সম্পূর্ণ ফ্ল্যাটবেড হওয়ায় যাত্রীরা আরামদায়কভাবে ভ্রমণ করতে পারবেন।

দুই পাশের প্রত্যেক আসনের পাশে রয়েছে বড় আকারের জানালা। জানালার বোতাম টিপে আলো নিয়ন্ত্রণ করা যাবে। কেবিনেও রয়েছে মুড লাইট সিস্টেম।

যাত্রীরা সহজেই পরিবর্তন করতে পারবেন লাইটিং মুড। দীর্ঘ সময় ভ্রমণেও যাত্রীরা যেন ক্লান্তি অনুভব না করেন সেজন্য এর ভেতরে এয়ার কম্প্রেসার সিস্টেম অন্যান্য বিমানের তুলনায় উন্নত।

ফ্লাইট উড্ডয়নের পরে বিজনেস ক্লাসে কোনো আসন ফাঁকা থাকলে ইকোনমি ক্লাসের যাত্রীরা সেটিতে যাওয়ার সুযোগ পাবেন।

তবে এজন্য উড়ন্ত অবস্থায় নিলামে অংশ নিতে হবে তাদের। সর্বোচ্চ দরদাতা টাকা পরিশোধ করে বিজনেস ক্লাসের আসনে স্থানান্তরের সুবিধা পেয়ে যাবেন। ড্রিমলাইনারের ইন ফ্লাইট এন্টারটেইনমেন্ট (আইএফই) সেবা দিতে প্যানাসনিক এভিওনিকস কর্পোরেশনের সঙ্গে চুক্তি করেছে বিমান। প্রতিটি আসনের সামনে প্যানাসনিকের এলইডি এস-মনিটর রয়েছে। মনিটরে বিবিসি, সিএনএনসহ ৯টি টিভি চ্যানেল দেখা যাবে।

একই সঙ্গে ড্রিমলাইনারের ইন-ফ্লাইট এন্টারটেইনমেন্ট সিস্টেমে (আইএফই) থাকবে ১০০টির বেশি ক্ল্যাসিক থেকে ব্লকবাস্টার চলচ্চিত্র। এছাড়া রয়েছে বিমানের জন্য বিশেষভাবে নির্মিত ভিডিও গেমস। অত্যাধুনিক বোয়িং ৭৮৭-৮ ড্রিমলাইনার সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৪৩ হাজার ফুট উপর দিয়ে উড়ে যাওয়ার সময়ও ওয়াইফাই সুবিধা পাবেন যাত্রীরা।

ওয়াইফাইয়ের মাধ্যমে প্রত্যেক যাত্রী ১৫ মিনিটের জন্য বিনামূল্যে ১০ মেগাবাইট ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবেন। এরপরও কোনো যাত্রীকে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে হলে চার্জ দিতে হবে। ১০০ মেগাবাইটের জন্য ৮ ডলার, ৩০০ মেগাবাইটে ১৬ ডলার আর ৬০০ মেগাবাইটের জন্য ৩২ ডলার চার্জ দিতে হবে।

এছাড়া মোবাইল ফোনে রোমিং সুবিধা থাকলে আকাশে উড্ডয়নের সময় কল করতে পারবেন যাত্রীরা। এজন্য ২৫টি স্যাটেলাইটের সঙ্গে করা হয়েছে চুক্তি।

বিমানটি যে স্থানের উপর দিয়েই যাবে, যাত্রীদের সামনে তখন স্ক্রিনে দেখা যাবে থ্রিডি ম্যাপ। একই সঙ্গে উঠে আসবে সেই স্থানের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি।