‘বিএনপির ২২ লাখ নেতাকর্মীর নামে মিথ্যা মামলা’

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ বলেছেন, খালেদা জিয়ার মুক্তি এখন আর বিএনপির দাবি নয়, এটি এখন দেশবাসীর দাবি। এদেশের সকলেই চায় বেগম জিয়াকে মুক্তি দেয়া হোক। কেননা, তারা একটি নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিত্বশীল সরকারকে ক্ষমতায় চায়।

বিএনপির ২২লাখের বেশি নেতাকর্মীর নামে মিথ্যা মামলা দেয়া হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, কথায় কথায় এই সরকার বিএনপি নেতাকর্মীদের গুম-খুন করছে।

বৃহস্পতিবার (৩০আগষ্ট) সন্ধ্যায় ফরিদপুরের সদর উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের সদরদী বাজারে আয়োজিত এক কর্মী সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে এ সভার আয়োজন করা হয়।

বিএনপির এই কেন্দ্রিয় নেতা সরকারে তার ২৫ বছর ক্ষমতাকালের কথা উল্লেখ করে বলেন, ৩ বার মন্ত্রী ও ৫ বার এমপি ছিলাম। কিন্তু কখনো আওয়ামী লীগের কোন নেতাকর্মীর গাঁয়ে একটু আচড়ও দেইনি। আর এখন সরকারের বিরুদ্ধে কথা বললেই হামলা-মামলা।

চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ পদ্মা সেতুতে ব্যাপক দুর্নীতি হচ্ছে বলেও অভিযোগ করে বলেন, মাত্র ১৩ হাজার কোটি টাকার পদ্মা সেতুর ব্যয় এখন বেড়ে ৮০ হাজার কোটি টাকায় দাঁড়িয়েছে! এতো টাকা দিয়ে তারা কি করছে? তারা উন্নয়নের নামে চরম লুটপাট চালাচ্ছে।

তিনি বিএনপির সকলস্তরের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধভাবে তিব্র আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়ে বলেন, আপনারা প্রস্তুত হোন। এই সরকারের পায়ের তলায় মাটি নেই। গণআন্দোলন গড়ে তুলেই বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগার থেকে মুক্ত করে দেশে একটি সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করবো।

কৃষ্ণনগর ইউপি চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা গোলাম মোস্তফার সভাপতিত্বে সভায় আরো বক্তব্য দেন, ফরিদপুর শহর বিএনপির সভাপতি রেজাউল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা মিরাজ, কোতয়ালী থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রঞ্জন চৌধুরী, ছাত্রদলের কেন্দ্রিয় নেতা নেতা এমএম ইউসুফ, ফরিদপুর মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি শাহরিয়ার হোসেন শিথীল, সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম, কৃষ্ণনগর ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ইসলাম মাষ্টার, মোঃ মোরাদ হোসেন, বিএনপি নেতা বদরুল ইসলাম স্বপন মেম্বার, মহিলা দল নেত্রী সেলিনা আক্তার, যুবদল নেতা বিশ্বজিৎ সরকার প্রমুখ।

হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি