বাংলাদেশ ক্রিকেটদলের অফিশিয়াল স্পনসর থেকে সরে দাঁড়ালো রবি

বাংলাদেশ ক্রিকেটদলের অফিশিয়াল স্পন্সর থেকে সরে দাড়িয়েছে বেসরকারি মোবাইল কোম্পানি রবি। চুক্তি অনুযায়ী নির্ধারিত মেয়াদ শেষ হওয়ার প্রায় বছর খানেক আগেই স্পনসরশিপ থেকে নিজেদের প্রত্যাহার করে নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এক বিবৃতিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে রবি অ্যাক্সিয়াটা লিমিটেড।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) আনুষ্ঠানিক কোনো বক্তব্য দেয়নি। তবে অভিজ্ঞ এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, কয়েকজন ক্রিকেটারের অন্য মোবাইল ফোন প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তির কারণে রবির সঙ্গে চুক্তিটি সাংঘর্ষিক হয়ে পড়ে। তার পরই সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে রবি।

২০১৫ সালে প্রথমবার রবি যখন বিসিবির সঙ্গে চুক্তি করে, টুকটাক সমস্যার শুরু হয় তখনই। শীর্ষ কয়েকজন ক্রিকেটার অন্য মোবাইল ফোন কোম্পানির সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ থাকায়, রবির বিজ্ঞাপনের শ্যুটিংয়ে প্রায়ই অনীহা জানায়।  সেবার ৪১ কোটি  ৪১ লাখ টাকায় টিম সত্ত্ব পেয়েছিল রবি।

এরপর গত বছরের মে মাসে ৬০ কোটি টাকায় দ্বিতীয় দফায় রবি ২০১৯ সাল পর্যন্ত টিম সত্ত্ব পায়। সিনিয়র ক্রিকেটারদের অন্য মোবাইল কোম্পানিতে কাজের ব্যাপারে এক্ষেত্রে রবি কঠোর শর্ত আরোপ করি। কিন্তু অন্য কোম্পানির সঙ্গে দীর্ঘকালীন চুক্তির কারণে তারা রবির শর্ত পালন করেনি। বার বার রবি শর্তপূরণের তাগিদ দিলেও পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় ৭ সেপ্টেম্বর থেকে বিসিবির সঙ্গে সম্পর্ক চুকিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।

মূলত জাতীয় দলের সিনিয়র কয়েকজন ক্রিকেটার অন্য মোবাইল ফোন কোম্পানির সঙ্গে চুক্তিভুক্ত থাকায় এবং তাদের বিজ্ঞাপন নিয়মিত প্রদর্শন হওয়ায় হতাশ হয়েই রবি স্পনসরশিপ প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে সূত্র জানায়।

এ বিষষে জানতে যোগাযোগ করা হলে কথা বলতে রাজি হননি বিসিবি কোনো কর্মকর্তাই। তবে একাধিক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ঈদের ছুটিতে অনেকেই ঢাকার বাইরে আছেন। ঢাকায় ফিরলে এবিষয়ে আনুষ্ঠানিক বক্তব্য দেবে বিসিবি।