চাঁদাবাজির অভযিোগ অস্বীকার জাবি ছাত্রলীগের

অস্ত্রের মুখে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) সাবেক ছাত্রদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে চাঁদা দাবি,ভাংচুর ও মারধরের অভিযোগ অস্বীকার করেছে শাখা ছাত্রলীগের ৪ নেতাকর্মী।

চাদাঁবাজি,ভাংচুর ও মারধরের অভিযোগকারী ইসমাইল ইবনে ওয়ালি তন্ময় ও শাহাদাত হোসেন শাওনের নাম উল্লেখ করে রাজনৈতিক ও সামাজিকভাবে মানহানি করার অভিযোগ এনে আশুলিয়া থানা ইনচার্জ বরাবর সাধারণ ডায়েরী (সাধারণ ডায়েরী নং ১৩৮৮) দায়ের করেছে অভিযুক্ত এ চার নেতা কর্মী।

শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তারেক হাসান তার সঙ্গীয় অভিষেক মন্ডল, রবিউল ইসলাম ও নীলাদ্রি শেখর মজুমদারের পক্ষে এই সাধারণ ডায়েরী দায়ের করেন।

সাধারণ ডায়েরী’তে তারা উল্লেখ করেন, ‘জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আমবাগানে রিভারল্যান্ড ব্রডব্যান্ড সাভির্স নামে একটি প্রতিষ্ঠান ব্যাবসা করে। প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার ইসমাইল ইবনে ওয়ালি আমাদের নামে মিথ্যা বানোয়াট অভিযোগ আনে এবং গত ১৯.০৮.১৮ আমরা কেউই উক্ত বিবাদীর দোকানে যাইনাই।’

এছাড়া আজ সংবাদ মাধ্যমে প্রেরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে অভিযুক্তরা দাবি করেন , ‘ঐদিন অভিযুক্ত ৪ জনের মধ্যে তারেক হাসান ও অভিষেক মন্ডল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু সুফিয়ান চঞ্চলের সাথে এবং অন্য দুইজন রবিউল ইসলাম ও নিলাদ্রী শেখর মজুমদার ক্যাম্পাসের বাইরে অবস্থান করছিলেন। অভিযোগকারী কোন অসৎ উদ্দেশ্য এবং রাজনৈতিক ও সামাজিক ভাবে সম্মানহানি করার জন্য এমন অভিযোগ এনেছেন বলে দাবী করেন তারা ।

উল্লেখ্য গতকাল, ১৯ আগস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র ইসমাইল ইবনে ওয়ালি তন্ময় (রসায়ন ৩৯) ও শাহাদাত হোসেন শাওন ( ইংরেজি ৪১ ) এর মালিকানাধীন ‘রিভারল্যান্ড ব্রডব্যান্ড সার্ভিস’ এর অফিসে গিয়ে শাখা ছাত্রলীগের চার নেতা কর্মীর বিরুদ্ধে চাঁদা দাবি ও ভাংচুরের অভিযোগ আনেন।

অভিযোগকারীরা আরো জানান, ‘চাঁদা না দেওয়ায় তাদের মারধর করে অফিস ভাংচুর করে তালা ঝুলিয়ে দেয় ছাত্রলীগ নেতারা।’ অভিযোগের সত্যতায় তারা বেশ কিছু ছবি ও মারধরের ক্ষত চিহ্ন দেখান।

যোগাযোগ করা হলে অভিযোগকারী ইসমাইল ইবনে ওয়ালি তন্ময় বলেন, ‘আমাদেরকে যে মারধর করা হয়েছে তার ছবি আপনাদেরকে গতকাল দিয়েছি । তাছাড়া আমাদের কাছে চাঁদা দাবি করার ভিডিও আছে । ভিডিও আমরা শীঘ্রই সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ করবো।

রুদ্র আজাদ, জাবি প্রতিনিধি