দক্ষিণখান থানা জাতীয় শ্রমিক লীগ আয়োজিত জাতীয় শোক দিবস পালন

গতকাল ১৮-০৮-২০১৮ ইং ঢাকা মহানগর জাতীয় শ্রমিক লীগ দক্ষিণখান থানা আয়োজিত এক শোক সভা ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয় দক্ষিণখান থানাধীন ফায়দাবাদ প্রাইমারী স্কুল মাঠে। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য এ্যাড. সাহারা খাতুন মহোদয়।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মোঃ মন্জুর হাসান মজনু এবং সার্বিক সহযোগিতা ও অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন জনাব শানীন আহমেদ শাহীন, সাধারন সম্পাদক, দক্ষিণখান থানা জাতীয় শ্রমিক লীগ। জাতীয় শ্রমিক লীগের নেতৃবৃন্দ ও স্হানীয় সাধারন মানুষের উপস্থিতি অনুষ্ঠানকে প্রাণবন্ত করে তোলে। শোককে শক্তিতে পরিণত করার প্রয়াসে নেতৃবৃন্দ ও সাধারণ মানুষ জাতীর জনক শেখ মুজিবর রহমানের আত্মার শান্তি ও দোয়া কামনা করেন।

প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন- ১৫ আগস্ট বাঙ্গালি জাতির মর্মান্তিক দিবস। ১৯৭৫ সালের এ বেদনায়ক ঐতিহাসিক দিনটিতেই মহান স্বাধীনতার স্থপতি, মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করা হয়েছিল। তাই জাতি গভীর বেদনা ও শ্রদ্ধার সঙ্গে দিনটিকে জাতীয় শোক দিবস হিসাবে পালন করছে। আমি শোক দিবসে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের সকল শহীদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন ও মহান আল্লাহতায়ালার নিকট তাঁদের রুহের মাগফিরাত কামনা করছি। জাতির যে মহৎ সন্তানটি বাঙ্গালিকে জাতীয়তাবাদের চেতনায় উদ্বুদ্ধ করে বিশ্ব মানচিত্রে স্বাধীন বাংলাদেশের সীমানা নির্মাণ করেছিলেন তিনিই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

এ ঐতিহাসিক অবদানের জন্যই তিনি বাঙ্গালি জাতির জনক ও শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালির স্বীকৃতি পেয়েছেন। দেশ বিরোধী কুচক্রীমহল তাঁকে ও তাঁর ঘনিষ্ঠ সহযোগী জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করে দেশকে চিরতরে ধ্বংস করে দিতে চেয়েছিল। কিন্তু সচেতন জনগণ তাঁদের সে দুঃস্বপ্নকে বাস্তবের রূপ নিতে দেয়নি। অত্র এলাকার প্রতিনিধি হিসেবে আমি আপনাদের পাশে আছি, থাকবো। আপনাদের যেকোন সমস্যা আমাকে মন খুলে বলতে পারেন। আমি সাধ্যমত সমাধানের চেষ্টা করব, ইনশাআল্লাহ। অনুষ্ঠান শেষে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের মাধ্যমে গরিব ও মেহনতী মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ করা হয়।

ইসমাঈল আশরাফ, নিজস্ব প্রতিনিধি