কিশোরগঞ্জে যুবককে অপহরণের পর উদ্ধার, চক্রের এক সদস্য গ্রেফতার

কিশোরগঞ্জ থেকে সংবাদদাতা: কিশোরগঞ্জে মুক্তিপণের আদায়ের জন্য মো. সাদ্দাম হোসেন (২৭) নামের এক যুবক অপহরণ হওয়ার কয়েক ঘন্টার পরই উদ্ধার করেছে র‌্যাব। দিপ্ত বসাক নামে অপহরণ চক্রের এক সদস্যকেও আটক করেছে র‌্যাবের। বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৮টার দিকে র‌্যাব-১৪, সিপিসি-২, কিশোরগঞ্জ ক্যাম্প কিশোরগঞ্জ শহরের খড়মপট্টি এলাকায় অভিযান চালিয়ে অপহৃত যুবককে উদ্ধার এবং অপহরণ চক্রের সদস্যকে আটক করে।

আপক অপহরণ চক্রের সদস্য দিপ্ত বসাক কিশোরগঞ্জ শহরের বত্রিশ এলাকার বসাক নিকেতন রোডের মদন বসাকের ছেলে এবং উদ্ধার অপহৃত মো. সাদ্দাম হোসেন ময়মনসিংহ জেলার নান্দাইল উপজেলার নারায়ণপুর শিংরইলের গোলাম মোস্তফার ছেলে বলে জানা গেছে।

র‌্যার-১৪, সিপিসি-২, কিশোরগঞ্জ ক্যাম্প সূত্রে জানা গেছে, মো. সাদ্দাম হোসেন ঈদেও মার্কেট করার জন্য বুধবার সকালে কিশোরগঞ্জ শহরে আসে। সকালে শহরের অধিকাংশ মার্কেট বন্ধ থাকায় দুপুর দেড়টার দিকে কিশোরগঞ্জ শহরের শহীদী মসজিদের সামনে থেকে অটোরিকশা যোগে খড়মপট্টির মধ্য দিয়ে যাওয়ার সময় পথে দিপ্ত বসাক (২২), শিশির (৩০) ও অজয় সরকার (২৯) নামে অপহরণ চক্রের তিন সদস্য যাত্রীবেশে অটোরিকশায় ওঠে। কিছুদূর যাওয়ার পর নির্জন রাস্তা অটোরিকশাটি থামিয়ে অপহরণ চক্রের সদস্যরা সাদ্দাম হোসেনকে এলোপাথাড়ি মারপিট করে ও অপহরণকারীরা মোবাইল ফোনে সাদ্দামের পরিবারের কাছে সাদ্দামকে অপহরণ করা হয়েছে জানিয়ে মুক্তিপণের ১০ হাজার টাকা দাবি করে।

অপহরণের বিষয়টি বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে সাদ্দামের পরিবারের পক্ষ থেকে র‌্যাবকে জানানো হলে অভিযানে নামে র‌্যাব। অপহরণের তিন ঘন্টার মধ্যে অপহৃত যুবককে উদ্ধার এবং অপহরণ চক্রের সদস্য দিপ্ত বসাককে র‌্যাব আটক করতে সক্ষক হয় র‌্যাব।

র‌্যাব সূত্রে আরও জানা গেছে, অপহরণচক্রের সদস্যরা ইয়াবায় আসক্ত। নেশার টাকা জোগাড় করতেই তারা নিয়মিত ছিনতাই-চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন অপরাধ কর্মকান্ডে জড়িত।

র‌্যাব-১৪, সিপিসি-২, কিশোরগঞ্জ ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার লেফটেন্যান্ট বিএন এম শোভন খাঁন জানান, এ ঘটনায় কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

এস কে রাসেল, কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি