কুষ্টিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভাঙ্গনের ঝঁকিতে পড়েছে

মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার পদ্মা নদীর  তীরবর্তী কুষ্টিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ভাঙ্গনের ঝুঁকির মধ্যে পড়ে। এতেকরে বিদ্যালয়টির ২০০ জন শিক্ষার্থীর বিদ্যালয়ে শিক্ষা গ্রহণ করা অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছে। 

স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, ২০১৪ থেকে ২০১৬ ইং সালে এ এলাকার পদ্মা নদীতে ভয়াবহ ভাঙ্গন দেখা দেয়। ভয়াবহ সেই ভাঙ্গনের কবলে পড়ে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যায় কুষ্টিয়া, মান্ডাখোলা, জগৎদিয়াসহ আরো দুইটি গ্রামের প্রায় ৯০ ভাগ এলাকা। গৃহহীন হয়েছে একহাজারের উপরে পরিবার। কিন্তু সেসময় ভাগ্যক্রমে সেই ভাঙ্গনের কবল থেকে রক্ষা পায় বিদ্যালয়টি।

স্থানীয়রা আরো জানান, প্রত্যন্ত অঞ্চলের শতবর্ষী বিদ্যালয়টির উপরে নির্ভর করে এ এলাকার পাঁচটি গ্রামের শিক্ষার্থীদের পড়াশুনা।

যদি বিদ্যালয়টি রক্ষায় সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ এখনই কোন ব্যবস্থা গ্রহন না করেন। তাহলে এলাকার শিক্ষার্থীরা লেখা পড়ার সুযোগ থেকে একেবারে বঞ্চিত হয়ে যাবে।

আব্দুল বারেক স্থানীয় ইউপি সদস্য (৬ নং ওয়ার্ড, আরুয়া ইউনিয়ন) জানান, বিদ্যালয়টি রক্ষার জন্য উপজেলা, জেলার বিভিন্ন জায়গায় গিয়েছি। সবাই শুধু আশ্বস্ত করেছেন। কিন্তু বিদ্যালয় রক্ষায় এখনো কোন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করেনি কতৃপক্ষ।

বিদ্যালয়টির ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোঃশামিনুর রহমান জানিয়েছেন, বিদ্যালয় রক্ষায় স্থায়ীভাবে  কোন ব্যবস্থা গ্রহন করা না হলে । বিদ্যালয়টি রক্ষা করা কোনমতেই সম্ভব নয়।

মেহেদী হাসান( উপজেলা নির্বাহী অফিসার), শিবালয়, জানিয়েছেন, বিদ্যালয়টি রক্ষায় প্রয়োজনী ব্যবস্থা গ্রহনের  জন্য সংশিষ্ট  কতৃপক্ষকে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দা, শিক্ষার্থী, শিক্ষকদের  প্রত্যাশা শতবর্ষী এ বিদ্যালয়টি রক্ষায় সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ অচিরেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করলে। এ অঞ্চলের শিক্ষার্থীরা শিক্ষার আলো থেকে বঞ্চিত হওয়ার হাত থেকে রক্ষা পাবে।

মোঃ সোহেল রানা, মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি