চুনারুঘাটে মেয়ের বিয়ে ভাঙ্গাতে পিতার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ!

জেলার চুনারুঘাট উপজেলার শাইলগাছ গ্রামের বাসিন্দা কৃষক মোঃ কাসেম মিয়া(৫০)। আগামী ১৩ আগস্ট সোমবার তার মেয়ের বিয়ের তারিখ। তাই মেয়ের বিয়ের আয়োজন নিয়ে তিনি ব্যস্ত সময় পার করছেন। ঠিক এ মূর্হুতে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে মেয়ের বিয়ে ভাঙ্গাতে পিতা মোঃ কাসেম মিয়ার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনেছেন প্রবাসী ছোট ভাইয়ের স্ত্রী। এনিয়ে এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়েছে।

কৃষক কাসেম মিয়ার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করা হয়েছে দাবী করে এলাকাবাসী জানান, মেয়ের বিয়েতে টাকা দিয়ে সহায়তা করার কথা বলে ৬ আগস্ট দিবাগত রাতে কাশেম মিয়াকে তার প্রবাসী ছোট ভাইয়ের স্ত্রী হাছিনা আক্তার ঘরে যেতে খবর দেন। এ খবর পেয়ে তিনি তার ঘরে যান। এ সময় হাছিনাসহ তার দুই সঙ্গী মিলে কাসেম মিয়াকে আটকে রেখে ধর্ষণের নাটক সাজায়।

পরে কাশেম মিয়ার সুর চিৎকার শুনে আশপাশের লোকেরা এগিয়ে আসেন। পরে হাছিনার অভিযোগ পেয়ে চুনারুঘাট থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে কাসেমকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। পরদিন ৭ আগস্ট সকালে হাছিনা আক্তার থানা গিয়ে কাসেমের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনে মামলা করেন।

এলাকাবাসী জানায়, বিষয়টি তারা জানতে পেরে এর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন। পরিশেষে এ মিথ্যা মামলা থেকে রেহাই দেওয়ার জন্য প্রশাসনের প্রতি এলাকাবাসী জোরালো দাবী জানিয়েছেন।

বৃদ্ধা মা ফুল বানু বলেন, আমার ছেলে কাসেম মিয়া কৃষি কাজ করে সৎপথে জীবিকা নির্বাহ করছে। ছোট ছেলে প্রবাসে রয়েছে। এ ফাঁকে তার স্ত্রী হাছিনা আক্তার আমার উপর হামলা চালায়। এর প্রতিবাদ করে আমার বড় ছেলে কাসেম মিয়া। এরপর থেকে হাছিনা আক্তার বাদী হয়ে ইতিপূর্বেও দুই মিথ্যা মামলা করেছে। তাই পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এবার কাসেমের বিরুদ্ধে নাটক সাজিয়ে ধর্ষণ মামলা করেছে হাছিনা আক্তার। এর প্রভাব পড়ছে কাসেমের মেয়ের বিয়েতে।

মিথ্যা মামলা থেকে নির্দোষ ব্যক্তিদের মুক্তি দেওয়ার জন্য ও এ মামলাবাজ নারীর বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের প্রতি তিনি দাবী জানিয়েছেন।

হাছিনা আক্তারের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, সঠিক বিচারের জন্য মামলা করেছেন। তিনি আশাবাদী সুবিচার পাবেন। চুনারুঘাট থানায় ওসি কেএম আজমিরুজ্জামান বলেন, কাসেম মিয়ার বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা হয়েছে। এ মামলায় তাকে বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে কারগারে প্রেরণ করা হয়। বিষয়টি গুরুত্বসহকারে তদন্ত করা হচ্ছে।

নূর উদ্দিন সুমন, হবিগঞ্জ প্রতিনিধি