হামলাকারীদের শাস্তির দাবিতে সাংবাদিকদের ৭২ ঘণ্টার আল্টিমেটাম

নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন চলাকালে পেশাগত দায়িত্বপালনকালে সাংবাদিকদের উপর হামলাকারীদের আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে সনাক্ত করে আইনের আওতায় আনার আল্টিমেটাম দিয়েছে সাংবাদিক সমাজ। তা না হলে ভবিষ্যতে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়। মঙ্গলবার (৭ আগস্ট) সাংবাদিকদের ডাকে রাজধানীর কাওরানবাজারে সার্ক ফোয়ারায় আয়োজিত মানববন্ধনে এসব কথা বলেন তারা।

কারওয়ান বাজারে সার্ক ফোয়ারায় ১০ মিনিট মানববন্ধন ও প্রতীকী কর্মবিরতি পালন করেন সাংবাদিকরা। গত কয়েকদিনে নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সময় পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে সাংবাদিকদের উপর একের পর এক হামলা চালানো হয়। পুলিশের পাশে দাঁড়িয়ে সাংবাদিক বেছে বেছে এমন হামলা চালায় হেলমেটধারী সন্ত্রাসীরা।

এ ঘটনায় ক্রাইম রিপোর্টাস অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি পারভেজ খান বলেন, সরকারের সদিচ্ছার অভাব আছে। হামলাকারী সবাই চিহ্নিত হয়েছে। সরকার আন্তরিক হলে তারা আইনের আওতায় আসবে।

তিনি বলেন, বিগত দিনে সাংবাদিকদের আন্দোলন থেকে এবারের আন্দোলন ভিন্ন। এবার কোনো দলীয় সাংবাদিক পক্ষ আন্দোলন করছে না। এই আন্দোলনে সফলতা আসবেই।

মানববন্ধনে অংশ নেওয়া এক সাংবাদিক বলেন, ‘এখন পর্যন্ত হামলাকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কোনও উদ্যোগ দেখা যায়নি। বরং সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে— হামলাকারীদের তালিকা দিতে। এতগুলো পত্রিকায় ছবি প্রকাশের পরও যদি তাদের না পাওয়া যায়, তাহলে আমরা বুঝে নেবো সরকার মুক্ত গণমাধ্যমের বিপক্ষে। হামলাকারীদের শনাক্ত করে বিচারের আওতায় না আনা হলে ভবিষ্যতে হামলাকারী দলের সংবাদ বর্জনসহ আরও কঠোর কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবো আমরা।’

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএইউজে) একাংশের কোষাধ্যক্ষ দীপ আজাদ বলেন, প্রশাসন উস্কানিদাতার পরিচয় প্রকাশ করছে। কিন্তু সাংবাদিকদের উপর হামলাকারীদের ফুটেজ তারা চাইছে।

তিনি বলেন, প্রশাসনের ইচ্ছে থাকলে তাদের কাছে যে ফুটেজ আছে তাই দিয়ে সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করতে পারবে।

তিনি বলেন, সাংবাদিকরা আহত হলে সমাজের অন্য সবাই আহত হয়। অন্যদের সংবাদ প্রকাশ বন্ধ থাকে। ফলে রাষ্ট্র ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

মানববন্ধনের পাশাপাশি ১০ মিনিট প্রতীকী কর্মবিরতিও পালন করা হয়। মানববন্ধনে ডেইলি মেইল ২৪ এর হেড অফ নিউজ তানভীর আহমেদ, বাংলা ট্রিবিউনের হেড অব নিউজ হারুন উর রশীদ, সাংবাদিক দীপু সরোয়ার, একুশে টেলিভিশনের প্রতিবেদক সাকেরা আরজু, একাত্তর টিভির নাদিরা শারমিন, নাগরিক টিভির প্রধান বার্তা সম্পাদক ও বিএফইউজের কোষাধ্যক্ষ দীপ আজাদসহ বিভিন্ন ইলেকট্রনিক, প্রিন্ট, অনলাইন পোর্টালের সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।