প্রতিবন্ধী ও সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের পাশে চিত্রশিল্পী তানিম খান

বাংলাদেশের প্রতিবন্ধী ও সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের সহযোগিতায় এগিয়ে এসেছেন বা তাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন এমন ব্যাক্তিদের মধ্যে চিত্রশিল্পী তানিম খান অন্যতম। গত পাঁচ বছর যাবৎ ‘হাসি মুখ’ প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে তিনি সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের মুখে হাসি ফুটিয়ে তুলছেন।

তানিম খান। পেশায় একজন আইনজীবী এবং পাশাপাশি একজন চিত্রশিল্পী। তবে নিজেকে চিত্রশিল্পী হিসেবে পরিচয় দিতেই বেশি ভালোবাসেন তিনি। ছোটবেলা থেকেই শিল্পকর্মের প্রতি আকর্ষণ। রং-তুলির ছোঁয়ায় বিভিন্ন শিল্পের মাধ্যমে মানুষের মন কেড়ে নেন এই শিল্পী। শুধু তাই নয়, শিল্পকর্মকে হাতিয়ার বানিয়ে হাজারো শিশুর মুখে হাসি ফোটান তিনি। প্রতিবন্ধী আর সুবিধা বঞ্চিত পথশিশুদের নানাভাবে সহযোগিতা করে আসছেন তিনি। ঢাকার পরিবাগে ‘হাসি মুখ’ নামের একটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন তিনি। সেসব শিশুদের পাশে দাঁড়াতে নানা সময় নানা উদ্যোগও নেন তিনি।

এসম্পর্কে তানিম বলেন- ‘আমি স্কুল-কলেজে থাকতেই পথশিশু এবং প্রতিবন্ধী শিশুদের জন্য খুব কষ্ট অনুভব করতাম। তারপর যখন বড় হয়ে শিল্পী হলাম তখন ভাবলাম আমার এই শিল্প সত্ত্বা দিয়েই নিজেকে আমি ওদের মাঝে বিলিয়ে দিতে পারি। ওদের সাথে ছবি আঁকতে গিয়ে, ওদেরকে ছবি আঁকা শেখাতে গিয়ে দেখলাম ছবি আঁকাতে পথশিশুরা খুব আনন্দ অনুভব করে। তাছাড়া প্রতিবন্ধী শিশুরাও রঙয়ের সাথে খেলা করে অনেকটা আরোগ্য লাভ করে। তখন আমি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সাথে কাজ করা শুরু করি। এরপর একসময় ঢাকার পরিবাগে গড়ে ওঠে ‘হাসি মুখ’ নামের একটি প্রতিষ্ঠান।

দীর্ঘ পাঁচ বছর যাবৎ ওদের সাথে আছি আমি। আমাদের সমাজের বিত্তবানরা যদি এই প্রতিবন্ধী ও সুবিধা বঞ্চিত পথশিশুদের পাশে দাঁড়ায় তবে বাংলাদেশ এক নতুন সকাল দেখতে পাবে। এই কাজ করতে গিয়ে আমি অনেক বিখ্যাত মানুষের ভালোবাসা পেয়েছি। পেয়েছি সম্মান। তাদের মধ্যে একজন বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্সিয়া স্টিফেন্স ব্লুম বার্নিক্যাট। সর্বদা তার সহযোগিতা পেয়েছি এই কাজে। তিনি বিভিন্ন সময় আমাকে বিভিন্ন ভাবে দিক নির্দেশনা দিয়েছেন, যা আমাকে এগিয়ে যেতে সহযোগিতা করেছে। আমি তার কাছে কৃতজ্ঞ।’

চিত্রশিল্পী তানিম খান আশাবাদী যে, তার মতো আরো অনেকেই এসব শিশুদের পাশে দাঁড়াবে। তাদের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়াবে।