প্রেমিকার বাড়ির পিছনে প্রেমিকের আত্মহত্যা

দিনাজপুরের খানসামায় জয় শীল (১৭) নামে এক কলেজ ছাত্রের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। লাশটি ময়না তদন্ত করতে মর্গে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। জয় শীল খানসামা উপজেলার ভাবকী ইউনিয়নের রামনগর নাপিতপাড়ার ধনঞ্জয় শর্মার ছেলে। সে কাচিনীয়া স্কুলে এন্ড কলেজের একাদশ শ্রেণীর ছাত্র।

একই উপজেলার পার্শবর্তী খামারপাড়া ইউনিয়নের গাড়পাড়া শাহাপাড়ার বিনোদ চন্দ্র রায় (ফাগুনা) বাড়িতে (৩জুলাই) মঙ্গলবার ভোরে-এ ঘটনা ঘটে।

উপজেলার গাড়পাড়া গ্রামের ফাগুনা রায়ের মেয়ে শ্যামা (ছদ্মনাম) এর সাথে প্রেমের জের ধরে জয় শীলের মৃত্যু ঘটেছে বলে দাবী করেছে মৃতের পরিবার। এ ঘটনায় বাদী হয়ে নিহতের পিতা খানসামা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন।

মৃত জয়ের মা লক্ষ্মী রানী রায় (৪২) জানান, মেয়েটির সাথে ফোনে আমার ছেলে প্রায়ই কথা বলত এবং মেয়েটার সাথে অনেক ছবি রয়েছে। এর জের ধরে গত ১৫/২০ দিন আগে দক্ষিণ গাড়পাড়ার হরিবাসরে মেয়ের ভাই আমার ছেলেকে মারপিট করেছে পরে কমিটির লোকেরা আমার ছেলেকে বাঁচিয়েছে। গত সোমবার (মৃত্যু আগের দিন) বিকেলে মেয়ের তাহই মুকিন্দ আমাদের বাড়িতে এসে জয়কে মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছিল আর আজ ভোরে ছেলের মৃত্যুর খবর পেলাম।

প্রেমের বিষয়টি স্বীকার করে ছেলের চাচাতো ভাইয়ের স্ত্রী গীতা রানী (২৭) জানায়, আমি জানি আমার দেবর মেয়েটাকে ভালোবাসে ও মেয়েটাও ভালোবাসে। সে আমাক বলে যে, আমি ওই মেয়েটাকে বিয়ে করব।

পক্ষান্তরে প্রেমিকার মা বানী রানী (৪০) ও তার দশম শ্রেণীতে পড়ুয়া মেয়ে শ্যামা (ছদ্মনাম) তাঁরা জানান, আমরা মা ও মেয়ে ভোর প্রায় ৫টার দিকে প্রকৃতির ডাকে বাড়ির বাইরে যাই এবং ল্যাট্রিনে ব্যবহৃত পানির বদনা আনতে ঘরের কোণায় গিয়ে ছেলেটার পা দেখতে পাই। তখন চিৎকার করতে থাকি। তাঁরা আরো জানান, আমরা তাকে চিনিনা ও কোন দিন দেখিনি।

বিষয়টি জানার পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন ভাবকী ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম ও খামারপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. সাজেদুল হক সাজু।

এবিষয়ে দায়িত্ব প্রাপ্ত খানসামা থানার এস আই এ কে এম আতিকুর রহমান জানান, আমরা লাশটিকে মেয়ের ঘরের পিছনে ঝোলানো অবস্থায় মাটিতে শোয়ানো পেয়েছি। ছেলের পিতা বাদী হয়ে থানায় অভিযোগ দিয়েছে। মামলার রেকর্ডের কাজ চলছে। তদন্ত শেষে প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে।

ফখরুল হাসান পলাশ, দিনাজপুর প্রতিনিধি