বাংলাদেশ থেকে রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে প্রত্যাবর্তন করতে সাহায্য করবে চীন

বাংলাদেশ থেকে মিয়ানমারের নাগরিকদের (রোহিঙ্গা) প্রত্যাবর্তন করতে চীন সাহায্য করবে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী ও চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ইইয়ের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক আলোচনার সময় তিনি এ আশ্বাস দেন।

আজ শুক্রবার চীনের বেইজিং এ দু’দেশের মন্ত্রী পর্যায়ের একটি বৈঠকে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ইইয়ে এই আশ্বাস দেন।

মন্ত্রী জানান, মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নির্যাতনের শিকার হয়ে বর্তমানে এক দশমিক এক মিলিয়ন রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এসব বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গারা প্রত্যাবর্তনের জন্য দৃঢ় নিরাপত্তার গ্যারান্টি চাই। তারা কোনও ক্যাম্পে নয়, তাদের মূল গ্রামগুলিতে ফিরে যেতে চায়; তাদেরকে জীবিকা অর্জনের সুযোগ প্রদান করা উচিত।

তিনি বলেন, মিয়ানমারকে রোহিঙ্গাদের পুনর্বাসনের জন্য রাখাইন রাজ্যে সহায়ক পরিবেশ তৈরি করে প্রবর্তনের প্রক্রিয়া দ্রুত সম্প্রসারণে চীনের সক্রিয় সমর্থন প্রয়োজন।

জবাবে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে বাস্তুচ্যুত ব্যক্তিদের দ্রুত দেশে প্রত্যাবর্তন এবং বাড়ী নির্মাণ এবং অর্থনৈতিক সুযোগ সৃষ্টি করার মাধ্যমে রাখাইন রাজ্যে পুনর্বাসনকে পূর্ণ সমর্থন দেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী ২৮ থেকে ৩০ জুন রাষ্ট্রীয় সফরে বেইজিংয়ে অবস্থান করছেন।