ফরিদপুরে অপহরণের ২০ দিন পর স্কুলছাত্র অন্তরের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার

অপহরণের ২০ দিন পর ফরিদপুরের নগরকান্দার সেই স্কুলছাত্র অন্তরের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেছে নগরকান্দা থানা পুলিশ। অপহরণকারীদের চাহিদামত ১ লাখ ৪০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দিয়েও ছেলেকে জীবিত ফেরত পেলেন না হতভাগ্য মা, পেলেন ছেলের অর্ধ গলিত লাশ।

ফরিদপুরে অপহরণের ২০ দিন পর স্কুলছাত্র অন্তরের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার

মঙ্গলবার (২৬জুন) দিবাগত রাত ১টার দিকে উপজেলার তালমা ইউনিয়নের পাগলাপাড়া প্রামের রাস্তার পাঁশের খাদের মধ্যে মাটি চাপা দেওয়া অবস্থায় লাশটি উদ্ধার করা হয়। অন্তর উপজেলার তালমা নাজিম উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র। তাঁর বাবা আবুল হোসেন মাতুব্বর গ্রীস প্রবাসী। গত ৭ জুন রাতে তারাবির নামাজ পড়তে গিয়ে নিখোঁজ হয় অন্তর।

ফরিদপুরের পুলিশ সুপার জাকির হোসেন খাঁন সাংবাদিকদের বলেন, মঙ্গলবার বিকালে অন্তর অপহরণের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে মাহাবুব আলম নামের একজনকে আটক করা হয়। পরে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে তিনি জানান অন্তরকে ৭ জুন রাতেই গলায় গামছা পেঁচিয়ে হত্যা করে লাশ রাস্তার পাঁশের খাদের মধ্যে মাটি চাপা দেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় একটি অপহরণ মামলা করা হয়। পুলিশ বিভিন্ন সময়ে তিনজনকে গ্রেপ্তার করে। এর মধ্যে খোকন নামের একজনের সঙ্গে অন্তরদের পারিবারিক বিরোধ ছিল এবং অন্তরদের এলাকার এক নারীর সাথে খোকনের পরকীয়া ছিল ঐ নারীর সাথে অবৈধ মেলামেশারত অবস্থায় অন্তর দেখে ফেলে। আর এক আসামির মেয়ের সাথে অন্তরের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। মূলত এ দুটি বিষয়কে কেন্দ্র করেই অন্তরকে হত্যা করা হয়েছে বলে পুলিশ আসামিদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের সূত্রে জানতে পেরেছে।’

স্কুলছাত্র অন্তরের অর্ধ গলিত লাশ দেখে তার তার মা ,দাদা এবং ফুফুসহ অন্যান্যরা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন এ সময় তাদের আহাজারীতে আকাশ বাতাস ভারি হয়ে উঠে । নগরকান্দা উপজেলা চেয়ারম্যান মৈয়দ শাহিনুজ্জামান শাহিন, সহকারী পুলিশ সুপার নগরকান্দা সার্কেল এফ এম মহিউদ্দীন, নগরকান্দা থানার ওসি সৈয়দ লুৎফর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
এদিকে বুধবার সকালে নিহত অন্তরের স্বজন ও এলাকার বিক্ষুব্ধ জনতা আসামীদের ৮/১০ টি বাড়ীতে অগ্নিসংযোগ করে এবং কয়েকটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর করে। এলাকাবাসী অন্তর অপহরণ ও হত্যার সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবি করেছেন।

হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি