নিজেকে আটকে রেখে পিতার কাছ থেকে নেশাগ্রস্ত ছেলের মুক্তিপণ দাবি!

ঝিনাইদহ শহরের বনানী পাড়ার একটি ৫ তলা বাসা থেকে ১৫ দিন পর আসিফ হায়দার (২২) নামের এক যুবকে উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস। দীর্ঘ ৮ ঘন্টা চেষ্টার পর তাকে উদ্ধার করা হয়। সে ওই এলাকার হাফিজ উদ্দিনের ছেলে।

ঝিনাইদহ ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক রফিকুল ইসলাম জানান, দীর্ঘদিন ধরে একটি ছেলে একটি কক্ষে আটকে আছে খবর পেয়ে সকাল ১১ টার দিকে বনানীপাড়ার বাসায় অভিযান চালায় পুলিশ। দীর্ঘ প্রচেষ্টার পর সন্ধ্যা ৭ টার দিকে ঘরের দরজা ভেঙে তাকে উদ্ধার করা হয়। তিনি আরো জানান, গেল ২৫ রমজান থেকে বনানীপাড়ার ওই বাসার ৫ম তলার একটি কক্ষে নিজেকে বন্দি করে রাখে আসিফ হায়দার। নিজেই ওই কক্ষে রাখা খাবার খেয়ে দিনযাপন করতো।

তবে সব সময়ই সকলের সাথে ফোনে কথা বলতো। আজ উদ্ধারে গিয়ে কথা বললে সে বার বার বলে আমাকে বাচাতে এলে আমি আমার মত ব্যবস্থা নেব। এভাবে দীর্ঘ চেষ্টার পর সন্ধা ৭ টার দিকে সে ঘরে রাখা একটি গ্যাস সিলিন্ডারে আগুণ ধরিয়ে দেয়। এসময় ঘরের দরজা ভেঙে আগুন নিভিয়ে তাকে উদ্ধার করে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয় যুবক সেলিম হোসেন জানান, আসিফ দীর্ঘদিন ধরে নেশাগ্রস্থ ছিল। সে বিভিন্ন সময় বাড়ি থেকে টাকা নিয়ে নেশা করতো। নেশার জন্যই সে পিতার কাছে ৭ লক্ষ টাকা দাবি করে।

তিনি আরো বলেন, টাকা না দিয়ে ঘর থেকে বের হবে না, নিজেকে মেরে ফেলবে।

তবে বিষয়টি অস্বীকার করে আসিফের পিতা বিজিএমসি খুলনায় কমর্রত শেখ মো: হাফিজ উদ্দিন। তিনি জানান, ছেলে কোন নেশাগ্রস্থ ছিলনা। তবে সে মানসিক প্রতিবন্ধী ছিল। বিভিন্ন সময় এরকম করতো। ফলে ৫ম শ্রেণীর পর তাকে আর লেখাপড়া করানো হয়নি।

এদিকে স্থানীয়রা আরো অভিযোগ করে বলেন, ছেলের মাদকাসক্তের দোষ ঢাকতেই পিতা এতো দিন পর আজ ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশকে ফোন দিয়েছে ছেলে উদ্ধারের জন্য।

 

জাহিদুর রহমান তারেক, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি