দুই কারণে জিসিসি নির্বাচনে কোনো এজেন্ট দেয়নি বিএনপি!

দুই কারণে গাজীপুর সিটি করপোরেশন (জিসিসি) নির্বাচনে বিভিন্ন কেন্দ্রে বিএনপি কোনো এজেন্ট দেয়নি বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক।  

আজ সোমবার রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে জিসিসি নির্বাচন উপলক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে নানক এ কথা বলেন।

ভোটগ্রহণে বিএনপির অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, গাজীপুর সিটি করপোরেশন (জিসিসি) নির্বাচনে দু’টি কারণ- এক প্রার্থীর দুর্বলতা দুই দলীয় কোন্দল। তারা দলীয় দৈন্যতায় ভুগছে। তাই নানা অভিযোগ করে উধোর পিণ্ডি বুধোর ঘাড়ে চাপানোর চেষ্টা করছে তারা।

তিনি বলেন, গাজীপুরের মানুষ ২০১৩ সালে বিএনপিকে ভোট দেয়। কিন্তু ওই সময় গাজীপুরের কোনো উন্নয়ন হয়নি। এবার স্বভাবতই বিএনপি সেখানকার জনগণ বিএনপিকে প্রত্যাখ্যান করবে। ভোটাররাই আওয়ামী লীগের প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলমকে বিপুল ভোটে জয়ী করবে।

এর আগে সকালে ভোট দিতে গিয়ে বিএনপি মেয়রপ্রার্থী হাসান উদ্দিন সরকার অভিযোগ করেন, ‘ভোট সুষ্ঠু হবে কি না, তা নিয়ে আমার শঙ্কা আছে। বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে আমার পোলিং এজেন্টদের মারধর করে বের করে দেওয়া হচ্ছে। সাদাপোশাকে নেতা–কর্মীদের পুলিশ গ্রেপ্তার করছে। সব ভোটকেন্দ্রের অবস্থা বোঝার পর বোঝা যাবে নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে কি না। যে কৌশলে ভোট নেওয়া হচ্ছে, তাতে কয় শতাংশ ভোট হবে, তা নিয়ে সংশয় রয়েছে।’

গাজীপুর সিটি করপোরেশনে ৫৭টি ওয়ার্ড কাউন্সিলরের মধ্যে ইতোমধ্যে একজন ওয়ার্ড কাউন্সিলর বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। ৫৭টির মধ্যে ৫৬টি ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে ২৫৪জন এবং সংরক্ষিত ১৯টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ৮৪জন অংশগ্রহণ করছে। মেয়র পদের জন্য ৭ জন প্রার্থী এ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এর আগে সকাল ৮টা ২৪ মিনিটে তিনি নিজ বাসভবন সংলগ্ন ৫৪ ওয়ার্ডের আউচপাড়ায় বশির উদ্দিন উদয়ন একাডেমী ভোট কেন্দ্রে ভোট প্রদান করেন বিএনপি মেয়রপ্রার্থী হাসান উদ্দিন সরকার। এবং সকাল ৯টা ১৪ মিনিটে নিজ এলাকা কানাইয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোট প্রদান করেন আওয়ামী লীগ মেয়রপ্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম।

উল্লেখ্য, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ৪২৫টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে এ নির্বাচন শুরু হয়ে চলবে টানা বিকেল ৪টা পর্যন্ত। মোট ৫৭টি ওয়ার্ডে ভোটার সংখ্যা ১১ লাখ ৩৭ হাজার ৭৩৭ জন। এরমধ্যে পুরুষ ৫ লাখ ৭৯ হাজার ৯৩৫ জন এবং নারী ভোটার ৫ লাখ ৬৭ হাজার ৮০১ জন।