ইভিএমে প্রথমবারের মতো ভোট দিতে পেরে খুশি ভোটাররা

গাজীপুর সিটি নির্বাচনে ৬টি কেন্দ্রে ইভিএমের মাধ্যমে ভোট গ্রহন করা হচ্ছে। এর মধ্যে রানী বিলাসমনি সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় ও মারিয়ালী উচ্চ বিদ্যালয় অন্যতম। ইভিএমের মাধ্যমে প্রথমবারের মতো ভোট দিতে পেরে অনেক খুশি ভোটাররা।

ভোট প্রদান শেষে কেন্দ্র থেকে খুশি মনে বের হতে দেখা যায় গৃহিনী করিমন বেওয়াওকে। তার সাথে কথা বললে তিনি জানান, নতুন মেশিন দেখলাম। বেশ ভালো লাগলো। কোনো সমস্যা হয়নি। খুবই ভালো লেগেছে।’

তিনি বলেন, ‘শান্তিপূর্ণ পরিবেশে সুষ্ঠুভাবে ভোট হচ্ছে। লাইনে দাঁড়ানোর ঝামেলা নেই বললেই চলে। সবাই এসেই সঙ্গে সঙ্গে ভোট দিতে পারছে। আগে এরকম দিইনি। এত সহজে ভোট দেয়া যায়। খুবই কম সময় লাগে। কয়েকটা টিপ দিতেই ভোট হয়ে গেলো।

জেসমিন নাহার নামের আরো আকজন জানান, তিনি প্রথমবার ইভিএমের মাধ্যমে ভোট দিলেন। এত সহজে ও কম সময়ে ভোট দিতে পেরে তিনি অনেক খুশি।

নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয় সূত্র জানায়, নির্বাচনে ২৯ প্লাটুন বিজিবি দায়িত্ব পালন করছে। নির্বাচনের সার্বিক নিরাপত্তার জন্য বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ, এবিবিএন, আনসারসহ আইনশৃংখলা বাহিনীর প্রায় ১১ হাজার সদস্য মোতায়েন রয়েছে।

নগরীর ৫৭টি ওয়ার্ডে পুলিশ ও আনসারের সমন্বয়ে ৫৭টি স্ট্রাইকিং ফোর্স, সংরক্ষিত আসনে ২০টি স্ট্রাইকিং ফোর্স রয়েছে। এছাড়া ৫৭টি ওয়ার্ডে ৫৭টি এবং অতিরিক্ত একটিসহ মোট ৫৮টি টিম মোতায়েন রয়েছে।

প্রতি দুইটি ওয়ার্ডে এক প্লাটুন করে মোট ২৯ প্লাটুন বিজিবি দায়িত্ব পালন করছে। এদের মধ্যে ৭ প্লাটুন কোনাবাড়ি ও কাশিমপুর এলাকায়, ১০ প্লাটুন টঙ্গী এলাকায় এবং ১২ প্লাটুন জয়দেবপুর, বাসন চান্দনা চৌরাস্তা ও কাউলতিয়া এলাকায় দায়িত্ব পালন করছে।

নির্বাচনের আগে ও পরে চার দিন ৫৭টি ওয়ার্ডে একজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োজিত রয়েছেন। আরো ১০ জন অতিরিক্ত হিসেবে সর্বমোট ৬৭ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোতায়েন রয়েছেন।