নলছিটির গুরুত্বপূর্ণ সড়কে খানাখন্দ, বৃষ্টিতে চরম ভোগান্তি

ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলোর বেহাল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। গত কয়েক দিনের টানা বৃষ্টিতে যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে এসব সড়ক। প্রতিটি সড়কই খানাখন্দে ভরে গেছে। ভারি বৃষ্টিতে সদ্য সংস্কার করা সড়কগুলোরও প্রেইজিং উঠে যাচ্ছে। বর্ষার মৌসুম শুরুতেই বৃষ্টির পানিতে রাস্তাঘাটগুলোর করুণ দশায় জনগণের ভোগান্তি বেড়েছে।

বৃষ্টিতে অবস্থা এমন যে, যানবাহন চলাচল অনেকটা বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে। এ ছাড়া পীর মোয়াজ্জেম হোসেন সড়কের গর্ত কাঁদামাটি দিয়ে যানবাহন চালকরা সংস্কার করার পরে বৃষ্টিতে এখন আরো বেহাল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। উপজেলার সবগুলো সড়কের অবস্থা গত কয়েক দিনের বৃষ্টিতে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। নলছিটি শহরের প্রাণকেন্দ্র হাসপাতাল সড়ক, বাসস্ট্যান্ড, পুরান বাজার, থানা সড়ক, নলছিটি-বারইকরণ সড়ক এলাকায় খানাখন্দে একাকার। বৃষ্টি হলেই পানি জমে চরম ভোগান্তি পড়তে হয়।

গুরুত্বপূর্ণ এ রাস্তাগুলো উপজেলা শহরের প্রধান সড়ক হওয়া প্রতিদিন শিশুসহ সকলকে ভোগান্তি পোহালেও সংশ্লিষ্ট কারও মাথা ব্যাথা বা সংস্কারের উদ্যোগ নিচ্ছে না কর্তৃপক্ষ। নির্মাণের কয়েক বছর পর কয়েকটি সড়ক নামকাওয়াস্তে সংস্কার হয়। সংস্কারের অর্থ লুটপাটের কারনে কয়েক মাস যেতে না যেতেই সড়কের চিত্র যেই সেই।

বুধবার দুপুরে সরেজমিনে দেখা গেছে, বাদুরতলা রোডে সামান্য বৃষ্টিতে পানি জমে কয়েকটি প্রধান স্কুল কলেজের শিক্ষার্থী, মাদরাসা, মসজিদের মুসল্লিরাসহ সকলের রাস্তার কাঁদাপানিতে পোশাক ময়লায় একাকার হচ্ছে। সড়কের পাশের ব্যবসায়ীরা জানায়, সামান্য বৃষ্টি হলেই যখন রাস্তায় পানি জমে যায়। তখন সড়ক দিয়ে অনেক ইঞ্জিনচালিত গাড়ি যাতায়াত করলে দোকানের মধ্যে পানি প্রবেশ করে। এতে দোকানে থাকা জিনিসপত্র নষ্ট হচ্ছে।

পীর মোয়াজ্জেম হোসেন সড়ক এলাকার বাসিন্দারা বলছে, সড়কটি সংস্কার করা হয়েছে দুই বছর আগে, কিন্তু সঠিকভাবে সংস্কার না করায় কিছুদিন যে না যেতেই সড়কের বিভিন্ন স্থানে খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে, তারা এই সমস্যা সমাধানে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্ত ক্ষেপ কামনা করেছেন। এ ব্যাপারে নলছিটি উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ হেল বাকি চৌধুরী বলছেন, রাস্তার খানাখন্দের বিষয়টি সমাধানের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।

মোঃ আল-আমিন, ঝালকাঠি প্রতিনিধি