কুড়িগ্রাম সীমান্তে আবারো ভারতীয় বন্যহাতির তান্ডব

কুড়িগ্রামের রৌমারী ও রাজিবপুর উপজেলা সীমান্তের ১০ গ্রামে ভারতীয় বন্যহাতির তান্ডবে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে ওই দুই সীমান্ত এলাকার কৃষক। 

জানা গেছে, গত ১৯ মে সন্ধ্যা থেকে ২০ মে ভোর পর্যন্ত সীমান্ত এলাকার আধা পাকা, পাকা বোরো ধানক্ষেতে তান্ডব চালায় বন্যহাতির দল। এতে দু’উপজেলার প্রায় ১২ একর ধানক্ষেত নষ্ট হয়।

এলাকাবাসী জানায়, বালিয়ামারী সীমান্তের আন্তর্জাতিক মেইন সীমান্ত পিলার ১০৭৩, ভারতের কালাইয়েরচর ও বালিয়ামারী বর্ডার হাটের দক্ষিণ পাশ দিয়ে শনিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে ৩০ থেকে ৩৫টি বন্যহাতির দল বাংলাদেশে প্রবেশ করে। রৌমারী উপজেলার বকবান্ধা, খেওয়ারচর, আলগার চর, লাঠিয়াল ডাঙ্গা, পাহাড়তলী, রাজিবপুর উপজেলার বালিয়ামারী বাজার পাড়া, আদর্শগ্রাম, ব্যাপারীপাড়া, জালচিড়াপাড়া, মিয়াপাড়া এলাকা জুড়ে ব্যাপকভাবে তান্ডব চালিয়ে প্রায় ৮/১০ একর ইরি- বোরোধানের ক্ষতি সাধিত করে।

এ সময় গ্রামবাসীরা সন্ধ্যা থেকে ভোর পর্যন্ত জেগে থেকে আগুন ও ঢাকডোল পিটিয়ে হাতি তাড়ানোর চেষ্টা চালায়।

বালিয়ামারী ব্যাপারীপাড়া গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য ফরিজল হক জানান, ৩০/৩৫টি বন্যহাতি ভারতের কালাইয়েরচর ও বালিয়ামারী বর্ডার হাটের দক্ষিণ পাশ দিয়ে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ঢুকে পড়লে সীমান্তবাসী জড়ো হয়ে তাদের উঠতি ফসল ইরি/বোরো ধান যাতে বন্য হাতি ক্ষতি না করে তার জন্য চিৎকার, পটকা ও আগুন জ্বালিয়ে ফসল রক্ষার চেষ্টা চালায়।

একই গ্রামের কৃষক আব্দুল আজিজ জানান, আমি গরিব মানুষ, কষ্ট করে এক একর ইরি ধান আবাদ করেছি। ভারতীয় বন্যহাতির দল এসে আমার পাকা ধানক্ষেত অর্ধেক নষ্ট করে ফেলেছে।

রৌমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার দীপঙ্কর রায় বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের তালিকা তৈরি করে তাদের ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মোঃ মনিরুজ্জামান, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি