ধামরাইয়ে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন

ঢাকার ধামরাইয়ে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে সুতিপাড়া গ্রামের মৃত, দবির দারুগার স্ত্রী তাসলিমা সুলতানার অপকর্ম প্রকাশ করার কারণে ধামরাই প্রেসকক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ মাসুদুর রহমান বাবুলের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করার প্রতিবাদে এক বিশাল মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার (১৮ মে) বেলা ১১ঘটিকার সময় ধামরাই থানা বাসস্টান্ড ও ধামরাই প্রেসক্লাবের সামনে ঢাকা আরিচা মহাসড়কে এই মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এই সময় ধামরাই প্রেসক্লাবের সভাপতি ও যুগান্তরের সাংবাদিক মোঃ শামীম খানের সভাপতিত্বে এই মানববন্ধনের আয়োজন করাহয়। প্রতিবাদ সভায় বক্তবে শামীম খান বলেন, পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে কেন সাংবাদিকেরা মামলা খাবে। প্রশাসন কেন আমাদের মামলা নেয়। তারা সত্যতা যাচাই বাচাই না করে হুট করে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা করা কি তাদের কাজ। তাই এই মিথ্যা মামলার তীব্র প্রতিবাদ জানাই ও অতি তাড়াতাড়ি এই মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি করছি।

এই ব্যাপারে সাংগঠনিক মাসুদুর রহমান বাবুল বলেন, আমি আমার পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে মৃত দবির দারুগার স্ত্রী তাসলিমা সুলতানাকে তার স্বামীর মৃত্যুর আগে আপনাদের মধ্যে কোটের মাধ্যমে ছাড়া ছাড়ি হয়েছিল কিনা। সেই কথা জানতে চাইলে তাসলিমা সুলতানা আমার উপর চড়া হয়ে উঠে।তখন আমি বলি আমার কাছে উপযুক্ত প্রমান আছে এবং কোট থেকে যে আপনাদের ছাড়া ছাড়ি হয়ে ছিল তার নোটারি পাবলিক আমার কাছে আছে। এই কথা বলতে আমাকে তাসলিমা বলে আমি তোর বিরুদ্ধে মামলা করব তুই যদি এই কথা পেপার প্রত্রিকায় দেছ। কারণ তাসলিমা সুলতানা দবির দারুগার মৃত্যুর আগে তাদের মধ্যে নোটারী পাবলিক ষ্টামে কোটের মাধ্যমে তালাক হয়ে যায়।পরে যখন দবির দারুগা মারা যায় তখন সরকারী সকল সুবিদা দারুগার স্ত্রীর পরিচয় দিয়ে ভোগ করতে থাকে এই কথা প্রকাশ হলে তার সকল সুবিদা নষ্ট হয়ে যাবে বলে আমার বিরুদ্ধে সে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করতেছে।

তিনি আর জানান, উপজেলার শ্রীরামপুরের সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা মৃত দবির উদ্দিনের তালাক প্রাপ্তা সাবেক স্ত্রী তাসলিমা সুলতানা জীবন এবং তার আপন ভাইদের মধ্যে ইট ভাটার মালিকানা নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। এই বিরোধের জের ধরে তাসলিমার আপন ভাই রুকনুজ্জামান মিন্টু তাসলিমার এক গোপন তথ্য ফাঁস করে দেন। তথ্যটি হলো ২০০৬ সালের ০৩ ডিসেম্বর তাসলিমা সুলতানা জীবন কোর্টের মাধ্যমে তার স্বামী দবির উদ্দিনকে ডিভোর্স দেন। কয়েক দিন আগে তার ভাই মিন্টু সেই তালাক নামা ফাঁস করে দেন এবং সাংবাদিক সহ অন্যান্যদের হাতে তালাক নামার কপি তুলে দেন। এতে স্ত্রী সেজে প্রতারণা করে তাসলিমার সরকারি টাকা উত্তোলনের ঘটনা ফাঁস হয়ে যায়। একই গ্রামের অধিবাসী ধামরাই প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুদুর রহমান বাবুল এবিষয়ে জানতে চাইলে তার উপর চড়াও হন এবং তাকে বিভিন্ন প্রকার মামলার হুমকি দেন। এক পর্যায়ে তাসলিমা সুলতানা জীবন তার দুই ভাই মিন্টু, পিন্টু, সাংবাদিক মাসুদ ও তার পিতা ধামরাই উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সাংগঠনিক সম্পাদক হাবিবুর রহমানকে আসামি করে একাধিক মামলা দায়ের করেন।

বিবাদী মাসুদুর রহমান তার বিরুদ্ধে দায়ের কৃত মামলাকে মিথ্যা ও হয়রানিমূলক বলে দাবি করেন এবং বিনা শর্তে মামলা প্রত্যাহারের জন্য দাবি জানান। এঘটনাকে কেন্দ্র করে ধামরাই প্রেস ক্লাব এ মানববন্ধন কর্মসূচি ও প্রতিবাদ সভার আয়োজন করে। এই সময় আর উপস্থিত ছিলেন,ধামরাই প্রেসক্লাবের সভাপতি মোঃ শামীম খান, সহ-সভাপতি মোঃ জুলহাস, সাবেক সভাপতি মোঃ লুকমান হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মোঃ আর্নিসুর রহমান স্বপন, সাংবাদিক মোঃ আজাহারুল ইসলাম, মোঃ রাজু, মোঃ আবু হাসান, মোঃ মিজানুর রহমান মিজান,মোঃ আব্দুল কাদের, মোঃ ওয়াসিম, মোঃ আব্দুর রউফ,মোঃ আমিনুর রহমান, মোঃ আদনান হোসেনসহ সকল সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন।

সায়েম সোনাই, ধামরাই প্রতিনিধি