বিদ্যালয়ে পাঠদান করালেন ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক

ব্যতিক্রমী নানা উদ্যোগ যাকে দেশ সেরা খ্যাতি এনে দিয়েছে সেই ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক উম্মে সালমা তানজিয়া শিক্ষার মানোন্নয়নের লক্ষ্যে ফরিদপুরের একটি ঐতিহ্যবাহী বালিকা বিদ্যালয়ে আজ পাঠদান করলেন।

আজ বুধবার সকালে জেলা প্রশাসক ফরিদপুর শহরের গোয়ালচামট এলাকায় অবস্থিত সারদা সুন্দরী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে দশম শ্রেণির ছাত্রীদের ‘নৈতিক শিক্ষা মূল্যবোধ ও দেশপ্রেম’ বিষয়ে এক ঘণ্টার বিশেষ ক্লাস নেন। জেলা প্রশাসক ওই বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি বটে।

বিদ্যালয়ের হলরুমে আয়োজিত ক্লাসে প্রায় ৩৫০ জন শিক্ষার্থী জেলা প্রশাসকের ক্লাস উপভোগ করে। এসময় তিনি নৈতিকতা, মূল্যবোধ, দেশপ্রেমসহ এসএসসি পরীক্ষায় ভালো ফলাফল করার বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ ও টিপস্ দেন ।
বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জেলা প্রশাসককে নিজেদের মাঝে শিক্ষক হিসেবে পেয়ে আনন্দিত ও উৎসাহিতবোধ করে।

বিদ্যালয়ের মানবিক বিভাগের ১০ম শ্রেনীর শিক্ষার্থী ফাহামিদা ইয়াসমিন ঝুমু জানায়, ডিসি স্যারের ক্লাস আমাদের অনেক ভালো লেগেছে। আমরা দারুণভাবে উৎসাহিত হয়েছি। তাঁর গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা ও পরামর্শ পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করতে আমাদেরকে সাহায্য করবে পাশাপাশি নিজেদেরকে দেশের সুনাগরিক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হতে অনন্য ভূমিকা পালন করবে।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মনিরুল ইসলাম বলেন, এ এক বিস্ময়কর ব্যাপার। শিক্ষার উন্নয়নে জেলা প্রশাসকের এ ধরনের পদক্ষেপ খুবই প্রশংসনীয়।
এ সময় জেলা প্রশাসক বলেন, ‘একজন ভালো মানুষ পরিবার ও দেশের সম্পদ। সততা ও নিষ্ঠা আমাদের সফলতা অর্জনে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। আমরা পরিবার থেকে প্রাথমিক শিক্ষা নেই। এরপর বিদ্যালয় থেকে একাডেমিক শিক্ষা গ্রহণ করি। নৈতিক শিক্ষাপ্রাপ্তরাই প্রকৃত মানুষ হয়ে উঠতে পারে।’
তিনি বলেন, ‘আমরা যেমন আমাদের জন্মদাতা মা-কে ভক্তি, শ্রদ্ধা করি ও ভালোবাসি, তাঁর প্রতি দায়িত্ব পালন করি। একইভাবে মাতৃভূমিকে মা হিসেবে দেখতে হবে। আর মানুষকে ভালোবাসতে পারলে সোনার মানুষ হওয়া সম্ভব হবে।’
জেলা প্রশাসক বলেন, ‘আগামী প্রজন্মকে প্রকৃত শিক্ষা দান, দেশ ও মানবপ্রেমে উদ্বুদ্ধ করতে এবং তাদের সত্যিকারের মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে মানসম্মত শিক্ষার কোনো বিকল্প নেই। আমাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় মানসম্মত শিক্ষা প্রদান নিশ্চিত করতে হবে।’
পরে দুপুরে জেলা প্রশাসক ও বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি উম্মে সালমা তানজিয়া সভাপতিত্বে কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় অন্যদের মধ্যে প্রধান শিক্ষক মনিরুল ইসলাম, কমিটির সদস্য মো. ওহিদুর রহমান, মোস্তাফিজুল হক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের প্রাত্যহিক সমাবেশে যোগ দেন। এ সময় শিক্ষার্থীরা সমবেত কণ্ঠে জাতীয় সংগীত পরিবেশন করেন।
উল্লেখ্য,ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক হিসেবে যোগদানের পর থেকে প্রশাসনকে জনবান্ধব করার লক্ষ্যে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেন উম্মে সালমা তানজিয়া। জেলা ই-সেবা কেন্দ্র, ইউডিসি,ইউনিয়ন পরিষদের সেবা সমূহ অটোমেশন,আফিস আধুনিকায়ন,ডিজিটাল ভূমি অফিস ,হেল্প ডেস্ক, জয়িতা অঙ্গন, ডিজিটাল হাজিরা,শিক্ষক বাতায়নসহ নানা ধরনের জনসেবামূলক কর্মসূচি চালু ও সেবার মান উন্নয়নসহ প্রশাসনকে গতিশীল করার উদ্যোগ নেন তিনি। ছাত্র-ছাত্রীদের আধুনিক ও নৈতিক শিক্ষায় সুশিক্ষিত করে গড়ে তোলার জন্য ছাত্র-শিক্ষক-অভিভাবকদের সমন্বয়ে নানামুখী কর্মসূচিও গ্রহণ করেন উম্মে সালমা তানজিয়া। তিনি জেলার ৩০০টিরও বেশি স্কুল-কলেজে এ পর্যন্ত মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম প্রতিষ্ঠা করেছেন।
গতবছর ৫ ডিসেম্বর ফরিদপুরে যোগদানের এক বছরের কিছু বেশি সময় পর তিনি নাগরিক সেবায় ‘দেশ সেরা’ জেলা প্রশাসক নির্বাচিত হয়েছেন।
‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৭’ পুরস্কার প্রদানের জন্য আইসিটি’র মাধ্যমে নাগরিক সেবায় বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক উম্মে সালমা তানজিয়াকে ‘দেশ সেরা জেলা প্রশাসক’ (নাগরিক সেবা) নির্বাচন করা হয়। এর আগে ফরিদপুরে যোগদানের ঠিক এক বছরের মাথায় তিনি ঢাকা ও ময়মনসিংহ বিভাগের ‘শ্রেষ্ঠ জেলা প্রশাসক-২০১৭’ হিসেবে স্বীকৃতি পান। শিক্ষা ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য তাকে এই সম্মাননা দেয়া হয়েছিল।
সর্বশেষ এবছর তিনি প্রাথমিক শিক্ষায় বিশেষ অবদানের জন্য জাতীয় প্রথমিক শিক্ষা পদকে ভূষিত হন।গত ৬ মার্চ ঢাকার ওসমানী মিলনায়তনে রাষ্ট্রপতির নিকট হতে পুরস্কার গ্রহণ করেন তিনি।

হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি