অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে অনুপস্থিত বাচ্চু, ১৫ মে ফের হাজিরা

দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) হাজির হবার জন্য আরও এক সপ্তাহ সময় পেয়েছেন বেসিক ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান শেখ আবদুল হাই বাচ্চু। নতুন নোটিশে আগামী ১৫ মে তাকে দুদকে হাজির হতে বলা হয়েছে। আজ সোমবার দুদক কার্যালয়ে তার হাজির হবার কথা থাকলেও অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে তিনি হাজির হওয়া থেকে বিরত থাকেন। শারীরিক অবস্থা বিবেচনায় নিয়ে দুদক তাকে আরও এক সপ্তাহ সময় দিয়েছে।

আজ সোমবার আবদুল হাই বাচ্চুকে দুদকের প্রধান কার্যালয়ে হাজির থাকতে তলবি নোটিশ পাঠিয়েছিলেন সংস্থার উপপরিচালক সামছুল আলম। পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেনের তত্ত্বাবধানে তিনি অভিযোগগুলোর অনুসন্ধান করছেন।

বেসিক ব্যাংকের সাড়ে চার হাজার কোটি টাকা জালিয়াতির কেলেঙ্কারির ঘটনায় শেখ আবদুল হাই বাচ্চু জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংক, অর্থ মন্ত্রণালয়সহ অধিকাংশ প্রতিবেদনে আবদুল হাইয়ের সংশ্লিষ্টতার কথা উঠে আসে। এ পর্যন্ত চারবার দুদক কার্যালয়ে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। গত বছরের ৬ ও ৮ ডিসেম্বর, এ বছরের ৮ জানুয়ারি ও ৮ মার্চ দুদকের পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেনের নেতৃত্বে একটি দল জিজ্ঞাসাবাদ করে বাচ্চুকে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০০৮ সালের ডিসেম্বরে বেসিক ব্যাংকের মোট বিতরণ করা ঋণের পরিমাণ ছিল ২ হাজার ৭০০ কোটি টাকা। ২০১৩ সালের মার্চে তা দাঁড়ায় ৯ হাজার ৩৭৩ কোটি টাকা। ওই চার বছর তিন মাসে ব্যাংকটি ৬ হাজার ৬৭৩ কোটি টাকা ঋণ দেয়, যার প্রায় সাড়ে চার হাজার কোটি টাকাই নিয়ম ভেঙে দেয়া হয়েছে।

২০১৪ সালের ২৯ মে ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ ভেঙে দিতে অর্থ মন্ত্রণালয়কে চিঠি দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। এরই ধারাবাহিকতায় ৪ জুলাই অর্থমন্ত্রীর বাসায় গিয়ে পদত্যাগপত্র দেন শেখ আবদুল হাই বাচ্চু।

বেসিক ব্যাংক কেলেঙ্কারিতে ২০১৫ সালের ২১, ২২ ও ২৩ সেপ্টেম্বর রাজধানীর মতিঝিল, পল্টন ও গুলশান থানায় ১২০ জনকে আসামি করে ৫৬টি মামলা করে দুদক। এসব মামলায় বেসিক ব্যাংকের ২৭ কর্মকর্তা, ১১ জরিপকারী ও ৮২ ঋণ গ্রহণকারী ব্যক্তিকে আসামি করা হয়। গত বছর আরও পাঁচটি মামলা করে সংস্থাটি।