কি ছিল তাসফিয়ার মৃত্যুর রহস্য, খুন না আত্মহত্যা?

চট্টগ্রামের পতেঙ্গার কর্ণফুলী নদীর তীর থেকে নগরীর সানশাইন গ্রামার স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্রী তাসফিয়া আমিনের লাশ উদ্ধারের পর পুলিশ ধারণা করছে প্রেমের হতাশা থেকে সে হয়তো আত্মহত্যা করেছে।

তাসফিয়ার চাচা জানান, কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার ডেইলপাড়ার বাসিন্দা মোহাম্মদ আমিনের পরিবার থাকেন ও আর নিজাম আবাসিক এলাকার ৩নং সড়কের কেআর এস বিল্ডিংয়ে থাকেন। কিছু দিন আগে ফেইসবুকে তাসফিয়ার সাথে আদনান মির্জা নামে এক ছেলের পরিচয় হয়। তার পরিবার এ খবর জানতে পেরে তাসফিয়ার মাধ্যমে আদনানকে তাদের বাসায় ডেকে আনে।আদনানকে বাসায় আনার পর তাসফিয়ার বাবা আদনানকে তার বাবাকে তাদের বাসায় ডেকে আনতে বলে। না হয় আদনানকে ছাড়া হবেনা বলে জানায়। আদনান ফোন করে স্থানীয় কিছু ছেলেপেলে এনে তাসফিয়ার বাবাকে হুমকি ধামকি দিয়ে তাসফিয়ার বাসা থেকে চলে আসে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তাসফিয়াকে ডেকে নেয় আদনান। তাসফিয়াকে নিয়ে যায় নেভালে।

নগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (বন্দর) আরেফিন জুয়েল বলেন, ‘প্রাথমিক তদন্তে এটাকে হত্যা নয়, আত্মহত্যা বলেই মনে হচ্ছে। হয়তো প্রেমের স্বপ্নভঙ্গের হতাশা থেকে স্কুলছাত্রী তাসফিয়া আবেগের বশে পতেঙ্গা সৈকতে গিয়ে বিষপানে আত্মহত্যা করেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘প্রেমিকের সঙ্গে প্রথম ডেটিংয়ে তার স্বপ্ন হয়তো পূরণ হয়নি। এ ছাড়া পরিবার থেকেও তাদের প্রেম নিয়ে বারণ ছিল। এরপরও প্রথম ডেটিংয়ে তারা বিকেলে বাসা থেকে বের হয়ে প্রথমে সিআরবি যায়। সেখান থেকে স্টেডিয়াম সংলগ্ন গ্রিডিগার্টস রেস্টুরেন্টে বসে সেখানেও কিছু খায়নি তারা। পরে দু’জন সিএনজি অটোরিকশা করে গোলপাহাড় মোড়ের চায়না গ্রিল রেস্টুরেন্টে যায়। সেখান থেকে পরে দু’জন দুটি সিএনজিতে করে চলে যায়।’

তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, মঙ্গলবার রাতে গোলপাহাড়ের মোড়ে অবস্থিত রেস্টুরেন্ট চায়না গ্রিল থেকে সিসিটিভির একটি ভিডিও ফুটেজ উদ্ধার করা হয়। ওই রেস্টুরেন্ট থেকে তাসফিয়া ও আদনানকে একসঙ্গে বের হতে দেখা যায়। এ সময় আদনানকে বিল দিতেও দেখা যায়।

চায়না গ্রিল রেস্টুরেন্টের ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টা ১৫ মিনিটে প্রবেশ করে তাসফিয়া ও আদনান। তারা ৬টা ৩৭ মিনিটে বের হয়ে যায়। ওই রেস্টুরেন্টের যে কর্মচারী তাদের আইসক্রিম সার্ভ করেছিলেন তার নাম উজ্জ্বল দাস।

তিনি জানান, তাসফিয়া ও আদনান ২০-২২ মিনিট দোকানে ছিল। তারা দুটি আইসক্রিম অর্ডার করেছিল। দুটি আইসক্রিমের দাম আসে ভ্যাটসহ ৩৭৫ টাকা।

তাসফিয়া-আদনান বিল দিয়ে বের হয়ে যাওয়ার পর উজ্জ্বল ওই টেবিলে গিয়ে দেখতে পান তারা আইসক্রিম খায়নি। কিন্তু বিল পরিশোধ করে চলে গেছে।

উল্লেখ্য, পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত এলাকা থেকে বুধবার (০২ মে) সকাল ৯টার দিকে অজ্ঞাত এক তরুণীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পতেঙ্গা থানার এসআই মোহাম্মদ আনোয়ার লাশ উদ্ধারের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘এখনো লাশের পরিচয় শনাক্ত করা যায়নি। তরুণীটি কীভাবে নিহত হয়েছেন, এ ব্যাপারেও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ মর্গে পাঠানো হয়েছে। লাশের মুখমণ্ডলে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তবে শরীরের আর কোথাও কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি।’