ঢাবির উপাচার্যের বাসভবন ভাংচুরের মামলায় ৪ জন গ্রেফতার

কোটা সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনরত অবস্থায় গত ০৯ এপ্রিল ২০১৮খ্রিঃ তারিখ রাতে অজ্ঞাতনামা মুখোশধারী সন্ত্রাসী ও দুস্কৃতিকারীগন কর্তৃক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য’র বাসভবনে হামলা, ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ ও মালামাল চুরির ঘটনায় ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (দক্ষিণ) বিভাগের একটি দল ।

গ্রেফতারকৃতরা হলো- (১) মোঃ রাকিবুল  হাসান ওরফে রাকিব (২৬), (২) মোঃ মাসুদ আলম ওরফে মাসুদ (২৫), (৩) মোঃ আলী হোসেন শেখ ওরফে আলী (২৮) ও (৪) আবু সাইদ ফজলে রাব্বী ওরফে সিয়াম (২০) । আজ ২৯ এপ্রিল ২০১৮খ্রিঃ দুপুর ০১.০০ টায় চানখারপুল এলাকা হতে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয় । তাদের দখল হতে ঘটনার সময় চুরি যাওয়া ২টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়েছে। গত ১০ এপ্রিল ২০১৮ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র সিকিউরিটি অফিসার এস এম কামরুল আহ্সান এর দায়ের করা অভিযোগের প্রেক্ষিতে তাদের গ্রেফতার করা হয় ।

শাহবাগ থানায় দায়ের করা মামলার অভিযোগে বলা হয়, ০৯ এপ্রিল ২০১৮খ্রিঃ তারিখ রাতে অজ্ঞাতনামা অনেক মুখোশধারী সন্ত্রাসী ও দুস্কৃতিকারী হাতে লোহার রড, পাইপ, হেমার, লাঠি ইত্যাদি নিয়ে বৈআইনী জনতাবদ্ধে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য’র বাসভবনের বাউন্ডারী ওয়াল টপকে এবং ভবনের মুল ফটকের তালা ভেঙ্গে ভবনের ভিতরে অনধিকার প্রবেশ করে বাসভবনের মুল্যবান জিনিসপত্র, আসবাবপত্র, ফ্রিজ, টিভি,  লাইট, কমোড ও বেসিন সহ অনেক মালামাল ভাংচুর করে ক্ষতিসাধন করে এবং মূল্যবান সম্পদ লুটতরাজ করে । তাছাড়া ভবনে রক্ষিত ২টি গাড়ী পুড়িয়ে দেয় এবং আরও ২টি গাড়ী ভাংচুর করে। এছাড়াও ভবনে রক্ষিত সিসিটিভি ক্যামেরাগুলো ভেঙ্গে ফেলে এবং সিসি ক্যামেরার ডিভিআরগুলো আগুনে পুড়িয়ে নষ্ট করে ফেলে ।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়- গ্রেফতারকৃত ৪ জনের মধ্যে কেহই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র নয়। শুধুমাত্র মাসুদ আলম ঢাকা আলীয়া মাদ্রাসার ছাত্র। অন্য ৩ জন কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র নয়। এরমধ্যে গ্রেফতারকৃত রাকিবের নামে বরিশাল ও লক্ষ্মীপুরে ৫ টি মামলা রয়েছে ।

গ্রেফতারকৃত চারজনকে সাতদিনের রিমান্ড চেয়ে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করলে বিজ্ঞ আদালত রাকিবকে চারদিন, আলীকে তিনদিন এবং মাসুদ ও সিয়ামকে দুইদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। তারা বর্তমানে গোয়েন্দা পুলিশ হেফাজতে রয়েছে।