জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্যের কার্যালয় ঘেরাও

গত ১৭ এপ্রিল আওয়ামী পন্থীদের আরেক পক্ষ উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের অনুসারী শিক্ষকদের সঙ্গে হাতাহাতির ঘটনায় ‘লাঞ্ছনার’ বিচারসহ চারদফা দাবিতে পূর্বঘোষিত এ কর্মসূচি পালন করছেন সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক শরীফ এনামুল কবিরের অনুসারী আওয়ামী পন্থী শিক্ষকরা। এছাড়াও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্যের (ভিসি) কার্যালয় ঘেরাও করেছেন তারা।

শিক্ষকদের উপর হামলা, অবৈধভাবে ডিন-প্রভোস্ট অপসারণ ও নিয়োগের প্রতিবাদে এবং অবিলম্বে উপাচার্য প্যানেল ও জাকসু নির্বাচনসহ একাধিক দবিতে সকাল ১০টা থেকে উপাচার্য অফিস ঘেরাও করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ। দুপুর একটা পর্যন্ত চলবে এ কর্মসূচি।

কর্মসূচি চলাকালে সংগঠনটির সভাপতি অধ্যাপক অজিত কুমার মজুমদার বলেন, ‘আমরা বরাবর চেয়েছি বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালিত হবে অধ্যাদেশ অনুসারে গণতান্ত্রিক পন্থায়। কিন্তু ন্যায্য এ দাবি আদায়ের আন্দোলন করতে গেলে তারা আমাদের লাঞ্ছিত করেন।’

এ বিষয়ে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম বলেন, ‘আন্দোলনরত শিক্ষকরা কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতনের বিষয়টি বিবেচনায় রাখেননি। তারা থেকে থেকে শিক্ষার্থী-প্রশাসনকে জিম্মি করছেন। আমি আহ্বান জানাই তারা যেন বিশ্ববিদ্যালয়ের মঙ্গলের জন্য ধর্মঘট, ঘেরাও এসব কর্মসূচি প্রত্যাহার করেন।’

প্রসঙ্গত, গত ১৭ এপ্রিল সর্বাত্মক ধর্মঘট কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দেন আন্দোলনরত শিক্ষকরা। এ কর্মসূচির অংশ হিসেবে পরিবহন ডিপোতে তালা দিতে গেলে উপাচার্য সমর্থিত শিক্ষকদের সঙ্গে আন্দোলনরত শিক্ষকদের ধাক্কাধাক্কির ঘটনা ঘটে। আন্দোলনরত শিক্ষকদের দাবি এ ঘটনায় তাদের ৬ শিক্ষক লাঞ্ছিত হয়েছেন।