পরকীয়ার সময় শাশুড়ির হাতে ধরা, ঘর ভাঙল এক সন্তানের জননীর

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার সাধুহাটি ইউনিয়নের রাঙ্গীয়ারপোতা গ্রামের রুনজানের ছেলে লম্পট তাহেরকে গভীর রাতে তার প্রতিবেশি জোছনা বেগমের ঘরে দেখা মেলে। জোছনা বেগমের শ্বাশুড়ি আরিফা বেগম গত শনিবার রাত ৪টার দিকে ঘর থেকে বের হলে, সে তার বৌমা (জোছনার) ঘরে কথা বার্তা শুনতে পায়। শ্বাশুড়ি উঁকি মেরে দেখতে পায় লম্পট তাহের তার বৌমার ঘরে, বৌমার সাথে মধুময় গল্প করছে।

তখনি সে ঐ অবস্থায় তাহেরের কলার চেপে ধরলে, লম্পট তাহের ছিটকে পালিয়ে যায়। জোছনার স্বামী জানায়, আমি ইটের ভাটায় কাজ করি, আর প্রতিদিনের ন্যায় সেদিনও আমি ভোর সাড়ে ৩ টায় বাড়ি থেকে বের হই। ১২ মাইল তেল পাম্পের নিকট পৌছাতেই শুনতে পায় এ ঘটনা। এলাকাবাসী জানায়, তাদের (তাহের ও জোছনার) দু’জনার চলাফেরা ছিল সন্দেহজনক। প্রায়ই তাহেরকে তার বাড়ির আসে পাশে দেখতে পাওয়া যায় বলে জানায় প্রতিবেশীরা, শওকত আরো জানান, ‘আমার ছেলে আল জাবির (১১) জন্মের পর থেকে সে আমার ও আমার পরিবারের সদস্যদের সাথে খারাপ আচরণ করে আসছে। আমাদের অবাধ্য হয়ে উচ্ছৃঙ্খল ও অনৈতিকভাবে চলাফেরা করে, এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে জোছনার স্বামী শওকত সোমবারে জোছনাকে তালাক দেয়।

জোছনাকে ঘটনার দিনে তার বাপের বাড়ি চুয়াডাঙ্গা জেলার জীবননগর কাশিপুর পাঠিয়ে দেন তার স্বামী। আর এভাবেই ১ সন্তানসহ গত ১৩ বছরের দাম্পত্য জীবন এখানেই শেষ হয়। এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে ডাকবাংলা ক্যাম্প ইনচার্জ হাসানুজ্জামান হাসান জানান, লম্পট তাহেরের বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে, তাহের এখন পলাতক। আমরা খুব দ্রুতই তাকে গ্রেফতার করব।

জাহিদুর রহমান তারিক, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি