স্বজনদের আর্তনাদে ভারি হয়ে উঠেছে রানা প্লাজা প্রাঙ্গণ!

রাজধানীর সাভারে রানা প্লাজা ধসে নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন এ দুর্ঘটনায় হতাহত শ্রমিকদের পরিবারের সদস্য ও বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের নেতাকর্মীরা। ২৪ এপ্রিল, মঙ্গলবার সকালে বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের নেতাকর্মীরা ঢাকা আরিচা মহাসড়কে বিক্ষোভ করেন। পরে রানা প্লাজার সামনে নির্মিত শহিদ বেদীতে ফুল দিয়ে নিহতদের স্মরণ করেন।

এ সময় স্বজনদের আহাজারি আর আর্তনাদে ভারি হয়ে উঠেছে সাভার বাজার বাসস্ট্যান্ডের রানা প্লাজা প্রাঙ্গণ। তাদের বুক ফাটা কান্নায় সেখানে হৃদয়বিদারক পরিবেশ তৈরি হয়েছে।

বেদিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন- ঢাকা জেলা প্রশাসন, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স, জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র, জাতীয় গণতান্ত্রিক গণমঞ্চ, বাংলাদেশ লেবার ফাউন্ডেশন, সাস, গণতান্ত্রিক গণ মোর্চা, জাতীয় গণ ফ্রন্ট, ওএসকে গার্মেন্টস এন্ড টেক্সটাইল ফেডারেশন, জাগো বাংলাদেশ গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশন, বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক ফ্রন্ট, প্রবাসী শ্রমজীবী ফ্রন্টসহ বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠন।

এ ছাড়া পোষাক কারখানার শ্রমিক, শ্রমিক সংগঠনের নেতা-কর্মী ও সাধারন মানুষ রানা প্লাজার সামনে স্থাপিত অস্থায়ী শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা শ্রদ্ধাঞ্জলী অর্পন করে নিহত শ্রমিকদের প্রতি সম্মান জানিয়েছে। শ্রদ্ধা শেষে মানববন্ধন ও বিক্ষোভসহ সেখানে নানা কর্মসূচি পালন করে শ্রমিক সংগঠনগুলো।

এ দিকে রানা প্লাজার পাঁচ বছর পূর্তি উপলক্ষে নিহত ও আহত শ্রমিকদের স্মরণে সাভারের অধরচন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল সকালে সাভার বাজার বাসস্ট্যান্ড এলাকায় রানা প্লাজা ধসে পড়ে। ঢাকা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের হিসাব অনুযায়ী রানা প্লাজার ধ্বংসস্তূপ থেকে ২ হাজার ৪৩৮ জনকে জীবিত এবং এক হাজার ১১৭ জনকে মৃত উদ্ধার করা হয়। পরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরো ১৯ জন মারা যান। সব মিলিয়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়ায় এক হাজার ১৩৬ জন।