সহপাঠীকে বিশ্বাস করায় গণধর্ষণের শিকার

ভারতে বাড়ি পৌঁছে দেয়ার কথা বলে গাড়িতে এক শিক্ষার্থীকে গণধর্ষণ করেছে তারই এক সহপাঠীসহ তিনজন। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের রাজধানী দিল্লির কাছে গ্রেটার নইডায়। গণধর্ষণের অভিযোগে ওই কিশোরীর সহপাঠীসহ দু’জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তবে এই ঘটনায় একজন পলাতক রয়েছে। ৬ বছরের ওই কিশোরী পুলিশকে জানিয়েছে, গত বুধবার সে স্কুলের বাস মিস করে। পরে সে একা একাই বাড়ি ফিরছিল। কিন্তু তারই এক সহপাঠী তাকে নিজের গাড়ি দিয়ে বাড়িতে পৌঁছে দেয়ার কথা বলে।

বন্ধুর কথা শুনে আর আপত্তি না করে গাড়িতে উঠেছিল কিশোরী। কিন্তু গাড়িতে তার সহপাঠীর আরও দুই বন্ধুও ছিল। তিনজনই তার পরিচিত ছিল। গাড়িতে পর তাকে জোর করে মাদক মিশ্রিত পানি দেয়া হয়। পরে চলন্ত গাড়িতেই তাকে গণধর্ষণ করা হয়। রাতের দিকে তাকে রাস্তার পাশে ফেলে পালিয়ে যায় ধর্ষকরা। স্কুল ছুটির পর দীর্ঘ সময় পেরিয়ে গেলেও মেয়ে বাড়ি ফিরছিল না বলে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন বাবা-মা। ১৯ এপ্রিল ভোররাতে নলেজ পার্ক এলাকায় গ্যালগোটিয়াস বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছের নির্জন রাস্তা থেকে ওই কিশোরীকে উদ্ধার করে পুলিশ। পরে ছাত্রীর নাম-ঠিকানা নিয়ে তার বাড়ির লোকজনকে খবর দেয়া হয়।

পুলিশের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানায়, ১৮ এপ্রিল ওই কিশোরীর বাবার কাছ পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তিনজনের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ আনা হয়েছে। এদের মধ্যে মূল অভিযুক্ত এবং আরও একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে ওই দলের বাকি একজন পলাতক রয়েছে।