‘সবার অবগতির জন্য জানিয়ে রাখি, আমার কোনো বিদেশি পাসপোর্ট নেই’

২৩ এপ্রিল, সোমবার রাত ১১টা ২০ মিনিটে ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে একটি স্ট্যাটাসে আওয়ামীলীগ তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, ‘সবার অবগতির জন্য জানিয়ে রাখি, আমার কোনো বিদেশি পাসপোর্ট নেই।’

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বাংলাদেশের পাসপোর্ট জমা দেওয়ার খবর প্রকাশের পর পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের সংবাদ সম্মেলনের একটি সংবাদ শেয়ার করে জয় এ কথা বলেন।

জয় বলেন, ‘বিএনপি সম্পূর্ণরূপে একটি অসৎ দলে পরিণত হয়েছে। তাদের কোনো কথাই আর বিশ্বাসযোগ্য না। এই সংবাদে আপনারা দেখতে পাবেন তারেক রহমান ও তার পরিবারের পাসপোর্টগুলোর কপি যা লন্ডনস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশনে হস্তান্তর করা হয়।

সবার অবগতির জন্য জানিয়ে রাখি, আমার কোনো বিদেশি পাসপোর্ট নেই। যুক্তরাষ্ট্রে আমার স্থায়ীভাবে বসবাসের অনুমতি আছে। গর্বের সাথে আমার সবুজ বাংলাদেশি পাসপোর্ট দিয়েই আমি যাতায়াত করি।’

এর আগে সোমবার সন্ধ্যায় গুলশানে নিজ বাসায় সাংবাদিকদের কাছে শাহরিয়ার আলম বলেন, ‘বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার স্ত্রী-কন্যা তাদের পাসপোর্ট যুক্তরাজ্যের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সমর্পণ করেছেন।

সেখান থেকে ওই পাসপোর্ট লন্ডনে বাংলাদেশের দূতাবাসে পাঠানো হয়েছে। পাসপোর্টগুলো এখন বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে রক্ষিত আছে।’

সম্প্রতি লন্ডনে প্রধানমন্ত্রীকে দেওয়া যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে শাহরিয়ার আলম বলেছিলেন, ‘তারেক কীভাবে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন? গ্রিন পাসপোর্ট হস্তান্তর করে তিনি বাংলাদেশি নাগরিকত্ব বর্জন করেছেন।’

এ মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পক্ষে দলটির আইনবিষয়ক সম্পাদক আইনজীবী কায়সার কামাল উকিল নোটিশ পাঠান শাহরিয়ার আলমকে। নোটিশে তারেক রহমানকে নিয়ে দেওয়া বক্তব্যের প্রমাণ চেয়ে প্রতিমন্ত্রীকে ১০ দিন সময় বেঁধে দেওয়া হয়। এই সময়ের মধ্যে প্রমাণ দিতে না পারলে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে বলা হয়, অন্যথায় আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানানো হয়।