‘জনগণের কাছে জনপ্রতিনিধিদের জবাবদিহি থাকতে হবে’

শনিবার দুপুরে ঝালকাঠির পৌরসভার বর্তমান পরিষদের দুই বছরপূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু মন্তব্য করে বলেন, নির্বাচনে জয়ী হলেই হবে না, জনগণের কাছে জনপ্রতিনিধিদের জবাবদিহি থাকতে হবে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সব সময় জনগণের সঙ্গে রয়েছে। ব্যবসায়ীদের এখন রাজনৈতিক নেতাদের চাঁদা দিতে হয় না। নিরাপদে তারা ব্যবসা-বাণিজ্য করছেন। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে কাউকে চাঁদা দিতে হবে না।

পৌরসভা চত্বরে মতবিনিময় সভার আয়োজন করে পৌর কর্তৃপক্ষ।

শেখ হাসিনার ১৯ বার প্রাণনাশের চেষ্টা করা হয়েছে জানিয়ে শিল্পমন্ত্রী বলেন, আল্লাহর রহমত আছে বলেই শেখ হাসিনা বেঁচে আছেন। তিনি বেঁচে আছেন বলেই জনগণের ভাগ্যের পরিবর্তন হচ্ছে। বাংলাদেশ দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। ভালো কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজকে ৩০টি আন্তর্জাতিক পুরস্কার পেয়েছেন। এর ফলে বাংলাদেশের মর্যাদা বিশ্বের কাছে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

শেখ হাসিনা বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়েছেন দাবি করে শিল্পমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল সোনার বাংলা গড়ে তোলার। তার সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনা সেই স্বপ্ন পূরণ করে যাচ্ছেন।

তিনি বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কর্মসূচি গ্রহণ করে তিনি বিশ্বে আড়োলন সৃষ্টি করেছেন। এ জন্য তিনি চ্যাম্পিয়ন অব দ্য আর্থ পুরস্কার লাভ করে বাঙালি জাতিকে গৌরাবান্বিত করেছেন। রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে শেখ হাসিনা মাদার অব হিউমিনিটিতে ভূষিত হয়েছেন। এমন নেত্রীর পাশে জনগণ থাকলে দেশের উন্নয়ন হবেই। জনগণই এখন বলতে শুরু করেছে, শেখ হাসিনার সরকার, বারবার দরকার।

ঝালকাঠি পৌরসভার উন্নয়ন সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগের আমলেই ঝালকাঠি পৌরসভা তৃতীয় শ্রেণি থেকে প্রথম শ্রেণিতে উন্নীত হয়েছে। আওয়ামী লীগের আমলেই ইউজিপ প্রকল্পে এ পৌরসভা অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। গত দুই বছরে ঝালকাঠি পৌরসভায় যত কোটি টাকার কাজ হয়েছে তা বিগত ৪০ বছরে হয়নি।

ঝালকাঠি পৌর মেয়র লিয়াকত আলী তালুকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে পুলিশ সুপার মো. জোবায়েদুর রহমান, পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আবু হানিফ, পৌর কাউন্সিলর তরুন কর্মকার, হুমায়ুন কবির খান, রেজাউল করিম জাকির, হাফিজ আল মাহামুদ ও নাসিমা কামাল বক্তব্য দেন।

অনুষ্ঠানে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সরদার মো. শাহ আলম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খান সাইফুল্লাহ পনির, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. সুলতান হোসেন খান, জেলা পাবলিক প্রসিকিউটর আবদুল মান্নান রসুল ও চেম্বার অব কমার্স সভাপতি মাহবুব হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।