হাতিরঝিলের বাসেও ‘র‌্যাপিড পাস’ কার্ড চালুর সিদ্ধান্ত

বিআরটিসির এসি ও ডিএনসিসির ঢাকা চাকা বাসে ‘র‌্যাপিড পাস’ কার্ড ব্যবহারের ধারাবাহিকতায় এবার হাতিরঝিলে চক্রাকার বাসেও চালু করতে যাচ্ছে এই ব্যবস্থা। ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষের (ডিটিসিএ) উদ্যোগে শীঘ্রই এই ব্যবস্থা চালু হবে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ডিটিসিএ’র অতিরিক্ত সচিব প্রকৌশলী মো. জাকির হোসেন মজুমদার জাগো নিউজকে বলেন, হাতিরঝিলে চক্রকার বাসে র‌্যাপিড পাস কার্ড ব্যবহার বিষয়ে গতকাল আমাদের একটা মিটিং হয়েছে। ওই সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামী সপ্তাহ থেকেই এই বাস সার্ভিসে র‌্যাপিড পাস কার্ড ব্যবহার শুরু হবে।

২০১৫ সালের ২৩ ডিসেম্বর হাতিরঝিল প্রকল্প এলাকায় কাঙ্ক্ষিত চক্রাকার বাস সার্ভিস চালু হয়। সে সময় যাত্রী ওঠা-নামার জন্য প্রকল্প এলাকার ১০টি জায়গা নির্ধারণ করা হয়।

এরমধ্যে রামপুরা, মধুবাগ, এফডিসি মোড়, বৌবাজার, শুটিং ক্লাব ও মেরুল বাড্ডার ছয়টি কাউন্টারে টিকিট পাওয়া যায়। আর এই চক্রকার বাসে যাত্রীদের স্বাচ্ছন্দে চলাফেরা করার জন্যই র‌্যাপিড পাস কার্ড চালু করতে যাচ্ছে ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষ।

ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে র‌্যাপিড কার্ড ব্যবহার বিষয়ে জানানো হয়, এর মাধ্যমে পরিবহনে নির্ধারিত ভাড়া দেয়া যাবে। র‌্যাপিড পাস মূলত ক্রেডিট কিংবা ডেবিট কার্ডের মতো। যাত্রী বাসে ওঠার সময় কার্ডটি বাসে রাখা মেশিনের সঙ্গে পাঞ্চ করলে সবুজ বাতি জ্বলে উঠবে। আবার যাত্রী যখন কাঙ্ক্ষিত গন্তব্যে নামবেন তখন আবার কার্ড পাঞ্চ করলে নির্ধারিত গন্তব্য অনুযায়ী কার্ড থেকে ভাড়া কেটে নেয়া হবে। সেই কার্ড আবার রিচার্জ করা যাবে। বর্তমানে বিআরটিসির ২৫টি এসি বাস ও ঢাকা-চাকা পরিবহনে এই কার্ড ব্যবহারের সুযোগ আছে।