ছাত্রাবাসে ছাত্রের ঝুলন্ত লাশ, ময়না তদন্ত চায় না পিতা!

ঝিনাইদহের শৈলকুপায় মা মঞ্জিল ছাত্রাবাসে ইবি ছাত্রের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার, ময়না তদন্ত চায় না পিতা আজম খান। জানা গেছে, শৈলকুপা উপজেলার শেখপাড়া বাজারের একটি ছাত্রাকাস থেকে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছাত্র সাইমুজ্জামান খান সাঈমের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

তিনি ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলার লস্করদিয়া ইউনিয়নের আজিয়া গ্রামের আজম খানের ছেলে। তার বাবা কৃষি ব্যাংকের প্রিন্সিপাল অফিসার। মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে শেখপাড়া বাজারের মা মঞ্জিলের (মেস) নিচতলার কক্ষ থেকে তাঁর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওই মেসের ছাত্ররা জানান, নিচতলার একটি কক্ষে একাই থাকতেন সাঈম। মঙ্গলবার দুপুরে তাঁর সঙ্গে কয়েকজনের শেষ কথা হয়। বিকেলে কক্ষটি ভিতর থেকে বন্ধ পাওয়া যায়। ঘুমিয়েছে ভেবে আর কেউ ডাকাডাকি করেননি। কিন্তু সন্ধ্যা পার হয়ে রাত হলেও দরজা বন্ধ দেখে সবার সন্দেহ হয়। রাতে দরজার নিচের ফাঁকা স্থান দিয়ে ঝুঁলে থাকা সাঈমের পা দেখে সবাই চিৎকার শুরু করেন। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমান ও শৈলকুপা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসেন এসে দরজা ভেঙে সাঈমের লাশ উদ্ধার করেন।

কি কারণে সাঈম আত্মহত্যা করেছে তা পুলিশ বলেতে পারেনি। ইবির প্রক্টর অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমান বলেন, ঘটনাটি অত্যন্ত বেদনাদায়ক। কোনো শিক্ষার্থী যেন জীবনে এ ভাবে নিজের জীবনকে বিলিয়ে না দেন। শৈলকুপা থানার ওসি আলমগীর হোসেন বলেন, খবর পেয়ে দরজা ভেঙে সাঈমের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা করা হয়। সাঈম আত্মহত্যা করেছে বলেও ওসি জানান। লাশ উদ্ধার করে মঙ্গলবার রাতেই ময়নাতদন্তের জন্য ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে মর্গে পাঠানো হয়েছে। জরুরী বিভাগের চিকিৎসক ডাঃ মিথিলা জানান, সাঈমের পিতা আজম খান লাশ ময়না তদন্তে আগ্রহী নয়। সে জন্য জেলা ম্যাজিষ্ট্রেটের কাছে তিনি আবেদন করেছে।

মোঃ জাহিদুর রহমান তারিক, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি