স্বাস্থ্যসহকারীর বিরুদ্ধে নারীকে শ্লিলতাহানীর লিখিত অভিযোগ

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার চান্দুয়ালী কমিউনিটি ক্লিনিকে নিয়ে নজরুল ইসলাম নামে এক স্বাস্থ্যসহকারী এক নারীকে শ্লিলতাহানী করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। রোববার সদর উপজেলার বেজিমারা গ্রামের এক নারী ঝিনাইদহ সিভিল সাজন ডাঃ রাশেদা সুলতানার কাছে লিখিত অভিযোগ করেন।

স্থানীয় মেম্বর আলীমুদ্দীন ও গোলাম রসুল ঘটনার সত্যতা স্বীকার বলেন, গত শুক্রবার বন্ধের দিন বেজিমারা গ্রামের আশরাফুলের স্ত্রীকে ফুসলিয়ে চান্দুয়ালী কমিউনিটি ক্লিনিকে নিয়ে যায় নজরুল ইসলাম এবং তাকে শ্লিলতাহানী ঘটায়।

এ ঘটনা তার সাথে থাকা বাচ্চা মেয়েটি দেখে ফেলে বাড়ি এসে সবাইকে বলে দেয়। নজরুল ইসলামের স্ত্রী চান্দুয়ালী কমিউনিটি ক্লিনিকের হেলথ প্রভাইডার হিসেবে কর্মরত। সে হিসেবে নজরুল ইসলাম স্বাস্থ্যসহকারী হলেও ফিল্ডে না গিয়ে স্ত্রীর পক্ষে চিকিৎসা সেবা দেন। এলাকার একাধিক নারীর অভিযোগ নজরুল ইসলাম চিসিৎসা নিতে আসা মেয়েদের স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেন। এতে অনেক নারী ক্ষোভে চিকিৎসা নিতে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছেন।

এদিকে বন্ধের দিন কমিউনিটি ক্লিনিকে নিয়ে নারীকে শ্লিলতাহানীর ঘটনা নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়ছে। লাখ লাখ টাকার বানিজ্য করা হচ্ছে। রোববার একজন সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে নজরুলের কাছ থেকে ৮ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। ওই সাংবাদিক নাকি সবাইকে ম্যানেজও করবেন।

বিষয়টি নিয়ে মধুহাটী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফারুক আহম্মেদ জুয়েল জানান, ঘটনাটি হয়তো তেমন না। ওই নারীর বাচ্চার মাথা কেটে গিয়েছিলো। সে জন্য সে চিকিৎসা নিতে আসে। আমরা নজরুলকে সরিয়ে দিচ্ছি।

তিনি আরো বলেন, গ্রাম্য পলিটিক্সের কারণে নজরুলের বিরুদ্ধে এমন অপপ্রচার হতে পারে বলে আমি মনে করছি।

অভিযুক্ত নজরুল ইসলাম বলেন, গ্রামের এক শ্রেনীর মানুষের সাথে আমার সামাজিক শত্রুতা। তারাই এই মিথ্যা অপবাদ ছড়াচ্ছে।

সিভিল সার্জন ডাঃ রাশেদা সুলতানা জানান, আমি এধরণের একটি অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্তের জন্য ডাঃ সাজ্জাদ হোসেনকে দায়িত্ব দিয়েছি। তদন্তে দোষি হলেই ব্যবস্থা নেব।

তিনি আরো বলেন, আমারও প্রশ্ন নজরুল তো স্বাস্থ্যসহকারী, তাকে তো চান্দুয়ালী কমিউনিটি ক্লিনিকে দায়িত্ব পালনের কথা না। তিনি তো ফিল্ডে থাকবেন। ঘটনার দিন তিনি কেন সেখানে থাকবেন ?

 

মোঃ জাহিদুর রহমান তারিক, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি