ঝিনাইদহ-ঢাকা-খুলনা যাওয়ার একমাত্র মহাসড়কটিতে চলছে কথিত মেরামত

ঝিনাইদহ-ঢাকা-খুলনা যাওয়ার একমাত্র মহাসড়কটিতে চলছে কথিত মেরামতের নামে জায়গার মাটি জায়গাতে ফেলা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। কালীগঞ্জ-ঢাকা-খুলনা মেইন বাসষ্ট্যান্ডের উপর দিয়ে যাওয়া ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে বড় বড় গর্তের কারনে মারাত্বক ভাবে বেড়েছে সড়ক দূর্ঘটনা। এ দূর্ঘটনা এখন নিত্য দিনের ঘটনায় রুপ রিয়েছে।

গত এক সপ্তায় বাসষ্ট্যান্ডে প্রায় দুই ফুট গভীরতার বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এতে রাস্তার উপর বিপদ সংকেত হিসেবে একটি কাঠের সাইন বোর্ড ও গাছের ডাল দিয়ে রাখা হয়। বিষয়টি স্থানীয়রা সড়ক ও জনপথে যোগাযোগ করলে কর্তৃপক্ষ একটি ভেকু দিয়ে জায়গার ইট, বালী ও খোয়া রাস্তা খুড়ে সমান করতে শুরু করে। উৎসুক জনতা রাস্তা খুড়ে সমান করা দেখে বলছে জায়গার মাটি জায়গায়। এই খারাপ রাস্তার কারণে কালীগঞ্জে অকালে ঝরে গেছে অনেক প্রাণ।

এই মহাসড়কের উপর দিয়ে প্রতিদিন ঢাকা, খুলনা, কুষ্টিয়াসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে হালকা ও ভারী যানবাহন ২৪ ঘন্টা চলাচল করে। কালীগঞ্জ মেইন বাসষ্ট্যান্ডের সড়ক খুবই ব্যস্ততম সড়ক। এর সড়কের উপর দিয়ে কোটচাঁদপুর, মহেশপুর, জীবননগর, চুয়াডাঙ্গা, দর্শনাসহ সব এলাকার মানুষের ঢাকা-খুলনা যাওয়ার একমাত্র সড়ক। সামান্য বৃষ্টি হলেই সড়কের এসব বড় বড় গর্ত ও রাস্তার উপর পানি জমে থাকার কারনে যানবাহনের চালকরা কোন কিছু না বুঝেই খাদের মধ্যে দিয়ে চলাচল করছে যার কারনে প্রতিদিন একাধিক দূর্ঘটনা ঘটছে।

এ ব্যাপারে গত-২৬/০৩/১৮ তারিখে সড়ক ও জনপথ বিভাগের বিভাগীয় উপ-প্রকৌশলী তানভির আহম্মেদের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেছিলেন, আমরা কাজ শুরু করে দিয়েছি আপনি দেখবেন মোবারকগঞ্জ চিনি কলের সামনে খোড়াখুড়ির কাজ শুরু হয়েছে।

তিনি আরো জানান ঐ প্রোজেক্টের সাথেই এই কাজ করা হবে। আমি ঠিকাদারকে প্রেসার দিচ্ছি দ্রুত কাজ শেষ করার জন্য। আশা করছি ২/৩ দিনের মধ্যেই কাজ করতে করতে মেইন ষ্ট্যান্ডে পৌছে যাবে। ঐ দিন থেকে আজ অবধি ১৮ দিন অতিবাহিত হলেও মহাসড়কটি সংস্কারের বিষয়টি আমলে আনছেন না।

মোঃ জাহিদুর রহমান তারিক, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি