জমায়েত ও গণমিছিলের ডাক দিল মুক্তিযোদ্ধারা

‘লাখো শহীদ ডাক পাঠালো সব সাথীরে খবর দে, সারা বাংলা ঘেরাও করে রাজাকারের কবর দে’ এই স্লোগানে যুদ্ধাপরাধিদের শাস্তি চেয়ে সকল মুক্তিযোদ্ধাদের জমায়েত ও গণমিছিল ডাক দিয়েছে আগামী ১৫ এপ্রিল। যুদ্ধাপরাধি, রাজাকারদের বিরুদ্ধে কিছু দাবি তুলে সকল মুক্তিযোদ্ধাদের ১৫ এপ্রিল সকাল ১১টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে জামায়েত ও গণমিছিল করার আহ্বান জানিয়েছে সকল মুক্তিযোদ্ধা কমিটি।

তাদের দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে-

  • যুদ্ধাপরাধি, রাজাকার ও স্বাধীনতা বিরোধীদের সন্তানদের সরকারি চাকরিতে নিয়োগ দেয়া যাবে না। প্রশাসনে রাজাকারদের বংশধরদের অনুপ্রবেশ আইন করে নিষিদ্ধ করতে হবে।
  • জামাত-শিবির করা ব্যাক্তি ও স্বাধীনতা বিরোধীদের সন্তানরা সরকারি চাকরিতে বহাল থেকে উন্নয়ন ব্যাহত ও দেশের বিরুদ্ধে চক্রান্তে লিপ্ত। তাদের চিহ্নিত করে চাকরি থেকে বরখাস্ত করতে হবে।
  • যুদ্ধাপরাধিদের নাগরিকত্ব বাতিল ও তাদের সকল সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করতে হবে।
  • ভিয়েতনামের মত ‘দেশদ্রোহীদের অধিকার সঙ্কুচিত’ আইন জারি করতে হবে।
  • রাজাকারের পুরনাঙ্গ তালিকা করতে হবে।

উক্ত দাবিগুলো আদায়ে এবং বাংলার মাটিকে যুদ্ধাপরাধি ও রাজাকার করতে সকল মুক্তিযোদ্ধা কমিটি মিলে এই জমায়েত ও গণমিছিলের ডাক দেয়। সারা বাংলাদেশ থেকে সকল মুক্তিযোদ্ধা কমিটির প্রতি এই জমায়েত এ যোগদানের আহ্বান জানায়।