‌‘সরকারি চাকরিতে কোনো কোটা থাকবে না, শতভাগ মেধায় নিয়োগ দেয়া হবে’

কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনে নেমেছে শিক্ষার্থী ও চাকরি প্রত্যাশীরা। বুধবার সকাল থেকে আবারও অবরোধ কর্মসূচি পালন করবেন তারা। এছাড়াও ঢাবিসহ সারাদেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জন কর্মসূচি পালন করবেন আন্দোলনকারীরা। এদিন বেলা ১১টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত ঢাবির টিএসসিসহ নিজ নিজ ক্যাম্পাসের বাইরের সড়কে অবরোধ চলবে।

‌‘সরকারি চাকরিতে কোনো কোটা থাকবে না, শতভাগ মেধায় নিয়োগ দেয়া হবে’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এমন আশ্বাস দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে বুধবার দুপুরে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান। এর আগে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে সকাল ১০টায় গণভবনে যান ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন।

পরে দুপুর দেড়টায় আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ছাত্রলীগ সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ বলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছি। সাক্ষাতের সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‌‘সরকারি চাকরিতে কোনো কোটা থাকবে না।’ এছাড়া তিনি আরও বলেছেন, আজ (বুধবার) সংসদে তিনি এ বিষয়ে কথা বলবেন।

সংবাদ সম্মেলনে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমরা ছাত্র সমাজের দাবির কথা জানিয়েছি। তিনি বলেছেন, ছাত্ররা যেহেতু চাচ্ছে না তাহলে কোনো কোটা থাকবে না।

কোটা সংস্কারের আন্দোলন সম্পর্কে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেহেতু কোটা বিষয়ে আশ্বাস দিয়েছেন আমি মনে করি এখন আর আন্দোলনের যোক্তিকতা নেই।

তবে আন্দোলনকারীদের যুগ্ম-আহ্বায়ক রাশেদ খান বলেছেন, আমরা কারো কথায় বিশ্বাস করি না। ইতোমধ্যে অনেকে বিভ্রান্তি তৈরি করেছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে সুস্পষ্ট নির্দেশনা না আসা পর্যন্ত আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাব।

তিনি আরও বলেন, আমরা শতভাগ কোটা বাতিল চাই না। কোটার যৌক্তিক সংস্কার করে ৫৬ ভাগ থেকে ১০ ভাগে নামিয়ে আনতে হবে।