থেমে ছিল না রোকেয়া হলের ছাত্রীরাও!

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারে জড়ো হয়েছেন আন্দোলনকারী সাধারণ শিক্ষার্থী ও চাকরি প্রত্যাশীরা। তাদের দাবি কোটা বিলুপ্ত নয় যৌক্তিক সংস্কার। বিচার চাই বিচার চাই স্লোগানে কাঁপছে ক্যাম্পাস। থেমে ছিল না রোকেয়া হলের নারীরাও। 

পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী, রবিবার দুপুর ২টায় ঢাবি কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে থেকে শিক্ষার্থী ও চাকরিপ্রার্থীদের পদযাত্রা শুরু হয়। পরে রাজু ভাস্কর্য হয়ে নীলক্ষেত ও কাঁটাবন ঘুরে পদযাত্রাটি শাহবাগ মোড়ে আসে। বিকাল ৩টা থেকে সেখানেই অবস্থান নেন। রোকেয়া হলের ছাত্রীরাও আন্দোলনে অংশ নিতে হল ছেড়ে ময়দানে নেমে আসে।

রাত পৌনে ১২টা। অন্যান্য স্বাভাবিক দিনগুলোতে এ সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে পিনপতন নীরবতা নেমে আসলেও আজ গভীর রাতেও ক্যাম্পাস উত্তাল। চারুকলার সামনে কয়েক হাজার সাধারণ শিক্ষার্থী গলা ফাটিয়ে শ্লোগান দিচ্ছে গুলি করে আন্দোলন বন্ধ করা যাবে না, যাবে না। মিছিলকারীদের সামনে জ্বলছে আগুন। টিয়ারসেলের ঝাজ থেকে বাঁচতে ওরা টায়ার ও পরিত্যক্ত কাঠ ও বাঁশে আগুন ধরিয়ে রেখেছে।

পুলিশের অ্যাকশনের পর শিক্ষার্থী ও চাকরিপ্রার্থীরা অবস্থান নেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার ও টিএসসি এলাকায়। সবশেষে তারা ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আক্তারুজ্জামানের বাসভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে স্লোগান দিতে থাকেন। তারা উপাচার্যের বাসভবনের গেট ভেঙে ভেতরে ঢোকার চেষ্টা করেন এবং বাসভবনে ইট-পাটকেল ছুঁড়তে থাকেন।

রাত যত গভীর হচ্ছে আন্দোলনকারী ও পুলিশের অবস্থানের দূরত্ব কমছে! আন্দোলনকারীদের মুখে জয় বাংলা স্লোগান। রাত ১২টা ২৯ মিনিটে পুলিশ মুহুর্মুহু টিয়ারসেল নিক্ষেপ ও ধাওয়া করে আন্দোলনকারীদের পিছু হটিয়ে দেয়।

https://www.facebook.com/moni.mokta.961/videos/364457624040788/