‘কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি এসব ধান ও চাল কিনবে সরকার’

চলতি বছর বোরো মৌসুমে দেশের কৃষকদের কাছ থেকে ৩৮ টাকা কেজি দরে ১০ লাখ টন চাল সংগ্রহ করা হবে। এ ছাড়া ধান সংগ্রহ করা হবে ২৬ টাকা কেজি দরে কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি এসব ধান ও চাল কিনবে সরকার, বলে জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম। আজ রোববার সচিবালয়ে খাদ্য মন্ত্রণালয়ে খাদ্য পরিধারণ কমিটির বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীসহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিব ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। কামরুল ইসলাম আরো বলেন, এবার মোট এক কোটি ৯০ লাখ টন চাল উৎপাদন হবে। এর মধ্যে কৃষকদের কাছ থেকে সরকার সংগ্রহ করবে ১০ লাখ টন। এসবের মধ্যে আট লাখ টন সেদ্ধ চাল সংগ্রহ করা হবে ৩৮ টাকা কেজি দরে। এক লাখ টন সংগ্রহ করা হবে আতপ চাল, যার দাম ৩৭ টাকা।

সরকার এ ছাড়া দেড় লাখ টন ধান সংগ্রহ করবে ২৬ টাকা দরে। এই ধান থেকে এক লাখ টান চাল হবে। অর্থাৎ সব মিলিয়ে চাল সংগ্রহ করা হবে ১০ লাখ টন। খাদ্যমন্ত্রী আরো জানান, এবার কৃষকের উৎপাদন খরচ হবে ৩৬ টাকা। ফলে ৩৮ টাকা দরে চাল কিনলে কৃষক প্রতি কেজিতে দুই টাকা করে লাভ করতে পারবেন। এ বছর দেশে গমের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ১১ লাখ টন। তবে অভ্যন্তরীণ বাজার থেকে সরকার কোনো গম সংগ্রহ করবে না বলে জানান খাদ্যমন্ত্রী। কারণ হিসেবে তিনি বলেন, প্রতিবছর আমদানি করেই গমের চাহিদা পূরণ করা হয়।

দেশে ধানের বাম্পার ফলনের পরও চালের দাম কমছে না কেন? জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘কৃষকের উৎপাদন খরচ মাথায় রেখেই চালের সংগ্রহমূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে। কৃষক যদি ন্যায্যমূল্য না পায়, তাহলে সে উৎপাদনে আগ্রহী হবে না। সে কারণেই এই দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। যেন তারা উৎপাদনে আগ্রহী হয়। কৃষক উৎপাদনে অনাগ্রহী হয়ে পড়লে আমদানি নির্ভার হয়ে পড়তে হবে, যা দেশের জন্য ভালো না।’