আত্মসমর্পন করলেন সাবেক প্রেসিডেন্ট লুলা

ব্রাজিলের সাবেক প্রেসিডেন্ট লুইজ ইনাসিও লুলা ডি সিলভা পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেছেন। ঘুষ গ্রহণ ও দুর্নীতির অভিযোগে তাকে ১২ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। এর আগে শুক্রবার লুলার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন দেশটির এক ফেডারেল বিচারপতি।

লুলা তার আদি নিবাস সাও পাওলোর কাছাকাছি এলাকায় আত্মসমর্পন করেন। তাকে পুলিশের গাড়িতে করে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। মাত্র একদিন আগেই তিনি আদালতের রায়ের বিরোধিতা করেছিলেন।

লুলাকে পুলিশের গাড়িতে করে নিয়ে যাওয়ার সময় সেখানে তার সমর্থকরা ভিড় জমান। তারা গাড়ির চারপাশে দাঁড়িয়ে তার প্রতি সমর্থন প্রদর্শন করেন। দলীয় কর্মীরা পুলিশের গাড়ি অবরোধের চেষ্টা করেন। লুলা বলেন, তিনি গ্রেফতারি পরোয়ানা মেনে নিয়েছেন। তবে তার দাবি তিনি নির্দোষ।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ফেডারেল বিচারপতি সেরজিও মোরো লুলাকে বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল না করা পর্যন্ত তাকে গ্রেফতার না করার জন্য আবেদন জানিয়েছিলেন লুলা। বৃহস্পতিবার সুপ্রিমকোর্ট তার সেই আবেদন খারিজ করে দিয়ে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়।

শুক্রবার বিকাল ৫টার আগেই ৭২ বছর বয়সী লুলাকে কুরিতিবা শহরে ফেডারেল পুলিশ সদর দফতরে আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়। কিন্তু বিচারকের বেঁধে দেওয়া নির্ধারিত সময়ের মধ্যে আত্মসমর্পণ করেননি। বিচারকের নির্দেশ অমান্য করে শুক্রবার বিকালে সাও পাওলো শহরের বাইরে মেটাল ওয়ার্কারস ইউনিয়নের এক কার্যালয়ের ভেতর অবস্থান করছিলেন তিনি। লুলাকে এখন দক্ষিণাঞ্চলীয় চুরিবিতা শহরের একটি কারাগারে নিয়ে যাবে পুলিশ।

নির্বাচনকে কেন্দ্র করে যেসব জরিপ হয়েছে সেগুলো অনুযায়ী তিনিই সবচেয়ে এগিয়ে থাকা প্রার্থী। আর সে কারণেই তার বিরুদ্ধে এমন ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন লুলা। তাই তার দাবি, তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।