মানিকগঞ্জে বাস চাপায় শিক্ষার্থী নিহত, বিক্ষুব্ধ জনতার সড়ক অবরোধ

মানিকগঞ্জের শিবালয়ের ঢাকা -আরিচা মহাসড়কের  বরংগাইল বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় বাস চাপায় অনার্স পড়ুয়া মামুন (২৩) নামে ১ শিক্ষার্থী নিহত হয়েছেন। সেই সাথে বাসটি মামুন কে চাপা দিয়ে রাস্তার পাশের  পুকুরে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে পড়ে গেলে আরো ২০ জন বাসযাত্রী আহত হন। শনিবার (৭ এপ্রিল)  বিকেল সাড়ে ৪ টার দিকে এ দুর্ঘটনাটি ঘটে।

নিহত মামুন মহাদেবপুর ইউনিয়ন  বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের  হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র ও উপজেলার বরংগাইল এলাকার নজিমুদ্দিনের পুত্র।

এদিকে বিক্ষুব্দ জনতা মামুন নিহত হওয়ার ঘটনার রাস্তা অবরোধ করে রাখে। এতে করে রোডের উভয় পাশে প্রায় ২ কিঃমিঃ এলাকাজুড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়।

স্থানীয় প্রতক্ষ্যদর্শীরা জানান, বরংগাইল হাইওয়ে পুলিশের গাড়ি রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে মোবাইল কোর্ট পরিচালনার নামে গাড়ি থেকে চাঁদাবাজি করে থাকে। আজ ওই স্থানে  দাঁড়িয়ে যশোর থেকে ঢাকা গামী ঢাকা মেট্রো -ব- ১৪- ৬৫৫২ সিরিয়ালের একটি গাড়িতে মাদক বহন করছে এই সন্দেহে গাড়ি থামানো চেষ্টা করলে দ্রুত গতির গাড়িটি না থামিয়ে চালক রাস্তার ডান পাশ ধরে যাওয়ার সময় মটর সাইকেল সহ মামুন কে চাপা দিলে সে ঘটনাস্থলেই নিহত হয় ও বাসটি নিয়ন্ত্রন  হারিয়ে পুকুরে পরে যায়।

বিক্ষুব্ধ জনতা ও মামুনের মামা জানান, পুলিশ ই মামুনের মৃত্যুর জন্য দায়ী। পুলিশ যেখানে সেখানে দাঁড়িয়ে মোবাইল কোর্টের নামে গাড়ি থেকে টাকা নেয়। আজ যদি পুলিশ এখানে দাঁড়িয়ে গাড়িটি সিগন্যাল না দিতো তাহলে হয়তো মামুন বেচে থাকতো। গাড়ি সিগন্যাল দেওয়ার জায়গা আছে কিন্তু যেখানে সেখানে দাঁড়িয়ে পুলিশ গাড়ি সিগন্যাল দেওয়ার ফলে প্রায়ই এরকম দুর্ঘটনা ঘটে থাকে। কিন্তু এই অভিযুক্ত পুলিশের বিচার না হওয়াতেই এমন ঘটনা গুলি ঘটছে। স্থানীয় বিক্ষুব্ধ জনতা ও মামুনের মামা বরংগাইল হাইওয়ে পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ সহ এ ঘটনার সাথে জড়িত সকল পুলিশ অফিসার ও পুলিশ সদস্যদের ফাড়ি হতে ক্লোজড করা সহ দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তি দাবি করেন।

এ বিষয়ে বরংগাইল পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ ইয়ামিনি উদ দৌল্লা জানান, এ ঘটনায় মামুন নামে একজন মটর সাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। এছাড়া বাসের চালক ও হেলপার ঘটনার  পর থেকে পলাতক আছেন।

মোঃ সোহেল রানা, মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি