পঞ্চম শ্রেণীর তিন শিক্ষার্থীকে যৌন নিপীড়নের কথা স্বীকার করলেন শিক্ষক

চট্টগ্রামের কর্ণফুলী উপজেলার চরপাথরঘাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণীর তিন শিক্ষার্থীকে যৌন নিপীড়নের কথা প্রাথমিক জিজ্ঞাবাদে স্বীকার করেছেন বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক আবুল হাশেম।

বুধবার দুপুরে গ্রেফতারকৃত প্রধান শিক্ষক আবুল হাসেমকে চট্টগ্রামের কর্ণফুলী থানায় আনা হয়। এর আগে গত মঙ্গলবার চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম এস এম মাসুদ পারভেজের আদালতে জবানবন্দি দেয় তিন শিক্ষার্থী।

চট্টগ্রাম নগর পুলিশের সহকারী কমিশনার (কর্ণফুলী) জাহেদুল ইসলাম বলেন,  ‘গ্রেফতারকৃত প্রধান শিক্ষক আবুল হাশেম জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন তিনি ‘ভুল’ করেছেন। তিন ছাত্রীকে যৌন হয়রানির প্রাথমিক সত্যতা মিলেছে। আবুল হাশেমকে ১০ দিনের রিমান্ডে চাওয়া হবে।’

প্রসঙ্গত, কর্ণফুলী উপজেলার চরপাথরঘাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবুল হাশেমের বিরুদ্ধে পঞ্চম শ্রেণীর তিন শিক্ষার্থীকে যৌন নিপীড়নের  অভিযোগ উঠে। গত সোমবার রাতে নির্যাতিতার স্বজনরা অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে কর্ণফুলী থানায় মামলা দায়ের করেন। এরপর গত মঙ্গলবার বেলা তিনটার দিকে তাকে ঢাকার মিরপুর থেকে গ্রেফতার করা হয়।

স্বজনদের অভিযোগ, বিদ্যালয়ের ছুটির পর ৫ম শ্রেণীর বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থীকে প্রধান শিক্ষক প্রাইভেট পড়াতেন। এ সময় কয়েকজন ছাত্রীকে যৌন নিপীড়ন করেন তিনি। এ ঘটনা জানার পর বিদ্যালয়ে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।