খালেদা জিয়ার ২২শে এপ্রিল পর্যন্তও জামিন মঞ্জুর

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে আগামী ২২ এপ্রিল পর্যন্ত জামিন দিয়েছেন আদালত। আজ বৃহস্পতিবার ঢাকার ৫নং বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ড. আখতারুজ্জামান এ আদেশ দেন।

এর আগে অসুস্থ থাকায় সকালে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বকশীবাজার বিশেষ আদালতে যাননি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তার অনুপস্থিতিতে শুনানিতে আগামী ৫ এপ্রিল নতুন দিন ধার্য করেন আদালত। এ সময় খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা তার জামিন বৃদ্ধির আবেদন করলে আদালত ৫ এপ্রিল পর্যন্ত সময় বৃদ্ধি করেন।

আদালতের ডিসি প্রসিকিউশন আনিসুর রহমান জানান, বিচারক নির্দেশ দিলেই বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজির করা হবে।

দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল শুনানিতে বলেন, খালেদা জিয়া বাতের ব্যাথায় ভুগছেন। মেডিকেল বোর্ড তাকে সুস্থ ঘোষণা করেছেন। কিন্তু পুরাতন বাত ব্যাথা তার রয়েছে। তিনি কোনো ওষুধ খাচ্ছেন না। তিনি তার ব্যাক্তিগত চিকিৎসক ছাড়া কোনো ওষুধ খাবেন না। আমরা তার ব্যাক্তিগত চিকিৎক দেয়ার জন্য চেষ্টা করছি। তা এখন প্রক্রিয়াধীন।

তিনি আরও বলেন, ভিডিও কনফারেন্সেরর মাধ্যমে মামলা পরিচালনা করার সুযোগ আছে। আমরা তার আবেদন করবো।

২২ ফেব্রুয়ারি এ মামলায় দুদকের পক্ষ থেকে প্রোডাকশন ওয়ারেন্ট জারির আবেদন করা হয়। ওই আবেদনের ওপর ২৬ ফেব্রুয়ারি শুনানি হয়। ওই দিন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা প্রোডাকশন ওয়ারেন্ট জারির বিরোধিতা করেছিলেন। শুনানি শেষে ১৩ মার্চ আদালত খালেদা জিয়াকে হাজিরের এ আদেশ দেন।

অপরদিকে খালেদা জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া বলেন, যেহেতু খালেদা জিয়া অসুস্থ সেহেতু এক মাসের সময় দেওয়া হোক।খালেদা জিয়া এ মামলায় আজ(৫ এপ্রিল) পর্যন্ত জামিনে রয়েছেন।তাই তার জামিন বৃদ্ধি করা হোক।

উভয় পক্ষের শুনানির পর আদালত মামলাটির যুক্তি উপস্থাপনের জন্য আগামী ২২ এপ্রিল দিন ধার্য করেন এবং ওই দিন পর্যন্ত খালেদার জামিন বৃদ্ধি করেন।