ইভটিজিং থেকে মেয়েকে বাঁচাতে গিয়ে শিক্ষক আহত

ভোলার লালমোহনে মেয়েকে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় নাজিরপুর মাদ্রাসার শিক্ষক মো. আক্তার ফারুককে পিটিয়ে রক্তাক্ত করেছে বখাটেরা। আজ বুধবার সকাল ৯টার দিকে উপজেলার বদরপুর ইউনিয়নের হাজীরহাট এলাকায় ইভটিজিং থেকে মেয়েকে বাঁচাতে গিয়ে এ ঘটনা ঘটে।

আহত শিক্ষক ফারুক বলেন, ‘তার মেয়ে মোসাম্মৎ মীম আক্তারকে মাদ্রাসায় যাওয়া-আসা পথে দীর্ঘদিন ধরে একই এলাকার মাসুদ হাজীর ছেলে পিয়াল, তার ভাগ্নে মুন্না ও রাতুলসহ কয়েক জন মিলে উত্ত্যক্ত করে আসছিল। বুধবার সকালে তার মেয়ে মাদ্রাসায় যাওয়ার সময় বখাটেরা ইভটিজিং করলে তিনি স্থানীয়দের বিষয়টি জানান।

এ সময় বখাটে পিয়াল, মুন্না ও রাতুলসহ ৫-৬ জনে মিলে আক্তার ফারুককে এলোপাথাড়ি পিটিয়ে জখম করে। পরে স্থানীয়রা আহত শিক্ষককে উদ্ধার করে প্রথমে লালমোহন সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে অবস্থার অবনতি ঘটলে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

লালমোহন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. রফিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। লালমোহন থানার ওসি মির খায়রুল কবির জানান, ঘটনাটি তিনি শুনেছেন। তবে এ ঘটনায় এখনো কেউ কোনও অভিযোগ করেনি। তিনি ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠাচ্ছেন বলে জানান।