‘রমজানে নিত্যপণ্যের কোনও সংকট হবে না, মূল্যও বাড়বে না’

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ জানিয়েছেন, দেশে নিত্যপণ্য সামগ্রীর পর্যাপ্ত মজুত রয়েছে। এ কারণে এ বছর রমজানে নিত্যপণ্যের কোনও সংকট হবে না, মূল্যও বাড়বে না। তিনি ব্যবসায়ীদের সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, যারা রমজানে নিত্যপণ্য মজুত করবে, রোজার পর তা নদীতে ফেলতে হবে।

আজ রবিবার (১ এপ্রিল) সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে আয়োজিত নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের সরবরাহ, বিপণন ও মূল্য পরিস্থিতি সংক্রান্ত এক আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় বাণিজ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

সভায় বাণিজ্যসচিব শুভাশিস বসু, খাদ্য মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব শাহাবুদ্দিন আহমেদ, ট্যারিফ কমিশনের চেয়ারম্যান, মেঘনা গ্রুপের চেয়ারম্যান, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধি, বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, অর্থ মন্ত্রণালয়, কৃষি মন্ত্রণালয়, খাদ্য মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ ব্যাংক ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের কর্মকর্তারা এবং সাংবাদিক প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে পরিবহন ব্যয় বাড়ার কারণে জিনিসপত্রের দাম বাড়ে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘আগে একটি ট্রাকে ২০ টন পণ্য পরিবহন করা হতো। এখন ওই ট্রাকেই ১৩ টন পণ্য পরিবহন করতে হয়। ফলে জিনিসপত্রের দাম বেড়ে যায়।’

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘পর্যাপ্ত মজুত থাকায় এ বছর রমজানে নিত্যপণ্যের কোনও সংকট হবে না, মূল্যও বাড়বে না। রমজানে প্রয়োজনীয় নিত্যপণ্যের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ ভোজ্যতেল, চিনি, ছোলা, ডাল, পেঁয়াজ ও খেজুরের কোনও সংকট হবে না। ইতোমধ্যেই রমজান উপলক্ষে প্রয়োজনীয় নিত্যপণ্যের অতিরিক্ত আমদানি করা হয়েছে। এ বছর কেউ কোনও পণ্য মজুত করবে না। কারণ, চাহিদার তুলনায় সব পণ্যের সরবরাহ বেশি। তাই কেউ মজুত করলে রোজার পর তা নদীতে ফেলতে হবে।’

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘সরকার এবং ব্যবসায়ী একই পরিবারের সদস্য। আমরা একে অপরের ভাই। আপনাদের প্রতি অনুরোধ রোজার মাসে যেন কোনও দুর্নাম না হয়। যেন সুনাম অর্জন করতে পারি। সেই বিষয়ে সরকারকে সহযোগিতা করুন। আমদানিকারক, পাইকারি ব্যবসায়ী ও খুচরা ব্যবসায়ী সবাই মুনাফা করবেন। তবে তা যেন সহনীয় মাত্রায় থাকে।’

SHARE

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here