বড় লক্ষ্য দেওয়ার পথে এগিয়ে গেছে ইংল্যান্ড

দারুণ লড়াই করলেন নিউ জিল্যান্ডের টেলএন্ডাররা। তবে স্টুয়ার্ট ব্রড ও জেমস অ্যান্ডারসনের চমৎকার বোলিংয়ে লিড পেল ইংল্যান্ড। দ্বিতীয় ইনিংসের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে ক্রাইস্টচার্চ টেস্টে স্বাগতিকদের বড় লক্ষ্য দেওয়ার পথে এগিয়ে গেছে জো রুটের দল। দ্বিতীয় টেস্টের তৃতীয় দিনের খেলা শেষে ইংল্যান্ডের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ২০২ রান। রুট ৩০ ও ডাভিড মালান ১৯ রানে ব্যাট করছেন। প্রথম ইনিংসে ২৯ রানের লিড নেওয়া অতিথিরা এগিয়ে ২৩১ রানে।

আরও একবার ব্যর্থ অ্যালেস্টার কুক। ট্রেন্ট বোল্টের স্টাম্পের বাইরের বলে খোঁচা মেরে ফিরে যান বাঁহাতি এই ওপেনার। দ্বিতীয় উইকেটে মার্ক স্টোনম্যানের সঙ্গে ১২৩ রানের জুটিতে দলকে দৃঢ় ভিতের ওপর দাঁড় করান জেমস ভিন্স। অতিথিদের জুটি ভাঙে টিম সাউদির বলে বিজে ওয়াটলিংয়ের দুর্দান্ত এক ক্যাচে। ৬ চারে ৬০ রান করে ফিরে যান স্টোনম্যান। তার বিদায়ের পর বেশিক্ষণ টিকেননি ভিন্স। বোল্টের বাজে এক বলে স্লিপে ক্যাচ দিয়ে শেষ হয় তার ৭৬ রানের চমৎকার ইনিংস।

প্রথম ইনিংসে গোল্ডেন ডাকের স্বাদ পাওয়া মালান দ্বিতীয় ইনিংসে জমে গেছেন। বরাবরের মতোই আস্থার সঙ্গে খেলছেন অধিনায়ক রুট। অবিচ্ছিন্ন চতুর্থ উইকেটে দুই জনে গড়েছেন ৩৭ রানের জুটি। এর আগে হ্যাগলি ওভালে ৬ উইকেটে ১৯২ রান নিয়ে রোববারের খেলা শুরু করে নিউ জিল্যান্ড। ৭৭ রান নিয়ে দিন শুরু করা উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান এদিন বেশিক্ষণ টিকেননি। ৮৫ রান করে ফিরে যান অ্যান্ডারসনের দারুণ এক ইয়র্কারে।

ইস সোধিকে ফিরিয়ে টেস্ট ক্যারিয়ারে ষোড়শ বারের মতো পাঁচ উইকেট নেন ব্রড। শুরু থেকে অতিথি বোলারদের ওপর চড়াও হওয়া সাউদি তুলে নেন নিজের ফিফটি। পঞ্চাশ ছোঁয়ার পরই অ্যান্ডারসনের ফুল লেংথ ডেলিভারির লাইন মিস করে বোল্ড হয়ে যান সাউদি। ৪৮ বলে খেলা তার ৫০ রানের ইনিংসে ৮টি চারের পাশে ছক্কা একটি। ২৩৯ রানে ৯ উইকেট হারিয়ে ফেলা নিউ জিল্যান্ডকে ২৭৮ পর্যন্ত নিয়ে যান নিল ওয়েগনার ও বোল্ট। ইনিংসের শুরুতে একবার বাউন্সারে হেলমেটে আঘাত পাওয়া ওয়েগনার অপরাজিত থাকেন ২৪ রানে। ১৬ রান করা বোল্টকে ফিরিয়ে দেন ব্রড।

নিউ জিল্যান্ডের দুই পেসার সাউদি ও বোল্ট নিয়েছিলেন ইংল্যান্ডের ১০ উইকেট। তার জবাব দিলেন যেন ব্রড ও অ্যান্ডারসন। তারা ভাগ করে নিয়েছেন স্বাগতিকদের ১০ উইকেট। ৫৪ রানে ৬ উইকেট নিয়ে ইংল্যান্ডের সেরা বোলার সাউদি। অ্যান্ডারসন ৪ উইকেট নেন ৭৬ রানে।