আফসানার মৃত্যুর সংবাদে হাসপাতালে আত্মীয়-স্বজনদের ভিড়

নেপালে ইউএস-বাংলার উড়োজাহাজ বিধ্বস্তে নিহত পাইলট আবিদ সুলতানের স্ত্রী আফসানা খানম টপি মারা গেছেন। শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টায় রাজধানীর আগারগাঁওয়ের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স অ্যান্ড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। হাসপাতালের যুগ্ম পরিচালক অধ্যাপক ডা. বদরুল আলম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে আফসানা খানম টপির মৃত্যুর খবরে হাসপাতালে ভিড় করছেন তার আত্মীয়-স্বজনরা। সেখানে তার ছেলে মাহি, বাবা ড. আবুল কাশেম, চাচা এস এম ইয়াদ আলী ও সমশের আলী, দেবর ডা. খুরশিদ মাহমুদ, ফুফাত ভাই শাহিনুল ইসলাম শাহিনসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা রয়েছেন। টপির মরদেহ এখনও হাসপাতালেই আছে।

নেপালের ত্রিভুবন ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টে বিধ্বস্ত হওয়া ইউএস বাংলার ফ্লাইটের ৫০ যাত্রী ও ক্রুর সঙ্গে প্রাণ হারিয়েছিলেন ওই উড়োজাহাজের ক্যাপ্টেন আবিদ সুলতানও। এ দুর্ঘটনার কয়েক দিনের মধ্যে স্ট্রোক করেন টপি। এরপর থেকে চিকিৎসাধীন ছিলেন আগারগাঁওয়ের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স অ্যান্ড হাসপাতালে। বিমান দুর্ঘটনায় নিহত যাত্রীদের জন্য একদিকে সারা দেশে যখন চলছিল শোক, তখন হাসপাতালে মৃত্যুর কোলে ঢোলে পড়ছিলেন আফসানা খানম টপি। টপির অবস্থার উন্নতি হয়েছে- স্বজনরা এমন খবরের অপেক্ষায় থাকলেও চিকিৎসকরা ভালো খবর দিতে পারছিলেন না।

২০ মার্চ ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স অ্যান্ড হাসপাতালের যুগ্মপরিচালক প্রফেসর ড. বদরুল আলম মন্ডল বলেছিলেন, ক্যাপ্টেন আবিদের স্ত্রী বেঁচে আছেন। তবে তার অবস্থা সঙ্কটপূর্ণ। তবে তার কিডনি, হার্ট লিভার সব সচল রয়েছে। তার রক্ত চাপ ১২০/৮০। কিন্তু তার ব্রেন স্বাভাবিক রেসপন্স করছে না। যন্ত্রের সাহায্যে তার শ্বাস-প্রশ্বাস চলছে। ২২ মার্চ তিনি আরও খারাপ খবর জানান। বলেন, টপির শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়েছে। তার কিডনি রেসপন্স কম করছে। ব্লাড প্রেসারও কমে গেছে। উন্নত যা চিকিৎসা দেশেই সম্ভব। বিদেশে নিয়ে যাওয়ার মতো অবস্থাতেই নেই টপি। এরপর শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টায় এল সবচেয়ে খারাপ খবরটি। এই পৃথিবী ছেড়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন টপি।