নারীর শ্রমে-ঘামে বাংলাদেশ আজ মধ্যম আয়ের দেশে

মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি বলেছেন, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতির পেছনে নারীর অবদান সবচেয়ে বেশি। নারীর শ্রমে-ঘামে বাংলাদেশ আজ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হচ্ছে। প্রায় ৪০ লাখ নারী শ্রমিক গার্মেন্ট শিল্পে কর্মরত রয়েছে। গার্মেন্ট শিল্প থেকে সবচেয়ে বেশি বৈদেশিক মুদ্রা আয় হয়। তাছাড়া বাংলাদেশের কৃষি অনেকাংশে নারীর শ্রমের ওপর নির্ভরশীল।

বুধবার রাজধানীর মিরপুরে ওজিএসবি হসপিটাল অ্যান্ড ইনস্টিটিউটের কনফারেন্স রুমে উপজেলা পর্যায়ে তৃণমূল নারী উদ্যোক্তাদের দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ কর্মসূচির উদ্বোধনের সময় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন। মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং অ্যাসোসিয়েশন ফর রাইটস অ্যান্ড পিচের (এআরপি) যৌথ উদ্যোগে এ প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে।

কর্মসূচি পরিচালক মো. মাহমুদ আলীর সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) মিজানুর রহমান, অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) মাহমুদা শারমিন বেনু, বিশিষ্ট সমাজ সেবিকা মিসেস আনোয়ারা তোফায়েল এবং অ্যাসোসিয়েশন ফর রাইটস অ্যান্ড পিচের নির্বাহী পরিচালক আসমাউল হুসনা প্রমুখ।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, নারীরা এখনও শ্রমিক থেকে মালিক হয়ে উঠতে পারে নাই। নারীদের মালিক হতে হবে।

উল্লেখ্য, এ কর্মসূচির মাধ্যমে সারা দেশে ১৫টি উপজেলায় ৯ হাজার ৩৬০ জন নারীকে প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তোলা হবে। মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয় সারা দেশে দুই কোটি নারীকে সরাসরি অর্থনৈতিক কার্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য পরিকল্পনা নিয়েছে। আর এ কর্মসূচি এ পরিকল্পনা বাস্তবায়নের একটি অংশ।