উত্তরাঞ্চলের ১১ জেলা সাথে ঢাকার বাস চলাচল বন্ধ

উত্তরাঞ্চলের ১১ জেলা থেকে ঢাকাগামী দূরপাল্লার বাস চলাচল করতে না দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে রাজশাহী বিভাগীয় পরিবহণ মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ।গতকাল মঙ্গলবার রাতে বগুড়া কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে পরিষদের জরুরি সভা শেষে এই ঘোষণা দেওয়া হয়। এর আগে সোমবার রাত থেকে কেবল বগুড়া থেকে ঢাকামুখী বাস চলাচল বন্ধ ছিলো। বুধবার সকাল থেকে বগুড়া, নওগাঁ ও জয়পুরহাটসহ রংপুর বিভাগের আট জেলা থেকে ঢাকামুখী বাস চলাচল বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে সংগঠনটি।

পরিস্থিতি নিয়ে করণীয় নির্ধারণ করতে বগুড়া কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে রাজশাহী বিভাগীয় পরিবহণ মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের জরুরি সভায় সভাপতিত্ব করেন—পরিষদের সভাপতি আবদুল লতিফ মণ্ডল। এ ছাড়াও সভায় বগুড়া জেলা মোটর মালিক গ্রুপের আহ্বায়ক মন্জুরুল আলম মোহন, যুগ্ম আহবায়ক আমিনুল ইসলাম,  মোটর মালিক গ্রুপের নেতা রফিকুল ইসলাম মন্জু, তওফিক হাসান ময়না, আকতারুজ্জামান ডিউকসহ সংগঠনের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

সভাশেষে ঐক্য পরিষদের সভাপতি আবদুল লতিফ মণ্ডল মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে জানান, নওগাঁ শ্রমিক ইউনিয়নের সঙ্গে বগুড়া মোটর মালিক গ্রুপের বিরোধের সূত্র ধরে গত কয়েকদিন ধরে বগুড়ার মালিকদের বাস ঢাকার মহাখালী ও গাবতলীতে আটকে রেখেছে পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের নেতারা। সোমবার নওগাঁ ও বগুড়ার বিরোধ মিটে যাওয়ার পরও ঢাকায় বগুড়ার বাস মালিকদের কাউন্টারগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়। প্রতিবাদে সোমবার রাত থেকে মঙ্গলবার সারাদিন বগুড়া থেকে ঢাকাগামী বাস চলাচল বন্ধ রাখেন বগুড়ার মালিকরা। তবে অন্যান্য জেলা থেকে ঢাকাগামী বাসগুলো চলাচল করেছে।

মঙ্গলবার রাত পর্যন্ত কোনো সমঝোতা না হওয়ায় এবং আটক ৩৪টি গাড়ি ঢাকা থেকে ছেড়ে না দেওয়ায় বুধবার সকাল থেকে এই অঞ্চলের সব জেলা থেকে ঢাকামুখী কোনো বাস চলাচল করতে না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এর ফলে বুধবার সকাল থেকে রংপুর বিভাগের আট জেলা এবং বগুড়া, জয়পুরহাট ও নওগাঁর সঙ্গে রাজধানীর বাস চলাচল বন্ধ থাকবে। এর ফলে বগুড়াসহ উত্তরের ১১টি জেলার রাজধানীমুখী যাত্রীরা বুধবার সকাল থেকে আবারও চরম দুর্ভোগে পড়তে যাচ্ছেন।