শ্রীদেবীর মরদেহ মুম্বাইয়ে নিয়ে আসতে তৈরি হয়েছে আইনি জটিলতা

শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১১টার দিকে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন বলিউডের কিংবদন্তি অভিনেত্রী শ্রীদেবী। শ্রীদেবীর মৃত্যুর খবর সামনে আসার পর থেকে সবাই জানে অভিনেত্রী হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। প্রয়াত বলিউড অভিনেত্রী শ্রীদেবীর মৃত্যুর কারণ রহস্যজনক দাবি করেছেন অনেকে। যেহেতু হোটেলে তাঁর মৃত্যু হয় সেকারণে ময়নাতদন্ত করাতে হয়েছে হার্টথ্রব এই নায়িকার। তবে সব জল্পনার অবসান ঘটেছে।

দুবাইয়ের ফরেন্সিক চিকিৎসকরা জানিয়ে দিলেন হার্ট অ্যাটাকেই মৃত্যু হয়েছে অভিনেত্রী শ্রীদেবীর। এর মধ্যে কোনও সন্দেহজনক কিছু দেখতে পাননি তাঁরা। পুরোটাই স্বাভাবিক মৃত্যু বলে জানিয়েছেন তারা। শ্রীদেবীর মৃত্যুর কারণ রহস্যজনক দাবি করা একেবারেই অপ্রাসঙ্গিক বলে জানিয়েছে দুবাইয়ের ওই হাসপাতাল। যদিও দুবাই পুলিশ মামলা দায়ের করেছে। সেকারণে তার মরদেহ মুম্বাইয়ে নিয়ে আসতে কিছু আইনি জটিলতা তৈরি হয়েছে।

শ্রীদেবীর মরদেহ প্রথমে সেখানকার মর্গে রাখা হয়েছিল। তারপর সেটির ময়নাতদন্ত করা হয়। ফরেন্সিক পরীক্ষার পর মরদেহ পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এবং ডেথ সার্টিফিকেট হাতে পাওয়ার পর পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট দেবে। পুলিশের ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট হাতে পাওয়ার পর ভারতীয় হাইকমিশনারের দপ্তরে যাবে সেটি। সেখানে শ্রীদেবীর ভিসা চেক করা হবে। সেটি বাতিল করে নতুন করে ডেথ সার্টিফিকেট দেওয়া হবে। সেইসব কাগজ এয়ারপোর্ট অথরিটিকে দেখানোর পরেই মিলবে ছাড়পত্র।

তবে দুবাই থেকে যে ডেথ সার্টিফিকেট ইস্যু করা হবে সেটি উর্দুতে লেখা হয়। ভারতীয় হাইকমিশনারের দপ্তর সেটি ইংরেজিতে অনুবাদ করে নতুন করে ইস্যু করবে। তারসঙ্গে পরিবারের লোকেদের নো অবজেকশন সার্টিফিকেটে সই করতে হবে। তবেই হবে পুরো প্রক্রিয়া শেষ।