বুলডোজারে মিশিয়ে দেওয়া হয়েছে রোহিঙ্গাদের ৫৫টি গ্রাম

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লিউ) অভিযোগ করেছে, সেনাবাহিনীর দমন অভিযানে জনশূন্য হয়ে পড়া মিয়ানমারের রোহিঙ্গা গ্রামগুলো বুলডোজার দিয়ে মাটির সঙ্গে মিশিয়ে দেয়া হচ্ছে। সেই সঙ্গে রোহিঙ্গা নিধনের আলামতগুলোও ধুলায় মিশিয়ে দিচ্ছে দেশটি।

সেনাবাহিনীর দমন অভিযানের পর জনশূন্য ৫৫টি রোহিঙ্গা গ্রাম নতুন করে বুলডোজার দিয়ে মাটির সঙ্গে মিশিয়ে দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লিউ)।

গত ২৩ ফেব্রুয়ারি (শুক্রবার) নতুন স্যাটেলাইট ছবি বিশ্লেষণ করে মানবাধিকার সংস্থাটি এই তথ্য জানিয়েছে।

এইচআরডব্লিউ বলছে, রাখাইন রাজ্যের উত্তরাংশে সেনাবাহিনীর চালানো ধ্বংসযজ্ঞের প্রমাণ মুছে ফেলার জন্যই এই কাজ করা হচ্ছে। তাদের তথ্যমতে তাদের হাতে আসা স্যাটেলাইট ছবি অনুযায়ী গত অগাস্ট থেকে এ পর্যন্ত অন্তত ৩৬২টি রোহিঙ্গা গ্রাম সম্পূর্ণ বা আংশিক ধ্বংসপ্রাপ্ত হওয়ার চিহ্ন দেখা গেছে।

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নিউ ইয়র্ক ভিত্তিক এইচআরডব্লিউ এসব ছবি এমন সময়ে প্রকাশ করল যখন মিয়ানমার সরকার জাতিসংঘ ও জাপানের সঙ্গে এই অঞ্চলের সহায়তায় একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে।

এইচআরডব্লিউর এশিয়া বিষয়ক পরিচালক ব্র্যাড অ্যাডামস বলেন, ‘এসব গ্রাম ছিল রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সেনাবাহিনীর দমন অভিযানের ভয়াবহতার প্রমাণ।’

তিনি আরও বলেন, ‘জাতিসংঘ যাতে মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনার আলামত সংগ্রহ করতে পারে এবং দোষীদের যথাযথভাবে শনাক্ত করতে পারে সেজন্য এসব গ্রাম ওই অবস্থায় সংরক্ষণ করা প্রয়োজন ছিল।’

রয়টার্স জানিয়েছে, এইচআরডব্লিউর প্রতিবেদনের বিষয়ে মিয়ানমার সরকারের মুখপাত্র জ তাইয়ের কোনো মন্তব্য তারা পায়নি।