পিএসএলে নিজের অভিষেক ম্যাচটা রাঙালেন মুস্তাফিজুর রহমান

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তার আবির্ভাবই চমক দেখিয়ে। এরপর মাঝে কয়েকটা দিন চোটের সঙ্গে লড়াইয়ে ছন্দ হারিয়ে ফেলেন মোস্তাফিজুর রহমান। তবে সাম্প্রতিক সময়ে আবারও সেই ছন্দ ফিরে পাওয়ার লক্ষণ দেখা যাচ্ছে বাংলাদেশের কাটার মাস্টারের।

শুক্রবার পিএসএলে নিজের অভিষেক ম্যাচটা রাঙালেন মুস্তাফিজুর রহমান। লাহোর কালান্দার্সের হয়ে তিনি ছিলেন সবথেকে সফল বোলার। প্রথমে ব্যাট করে সুলতান মুলতানের করা ১৭৯ রানের জবাবে ১৩৬ রানে শেষ হয় মুস্তাফিজদের ইনিংস। ম্যাচ সেরা হয়ে হয়েছেন মুলতানের কুমার সাঙ্গাকারা।

পাকিস্তান সুপার লিগে (পিএসএল) এর আগে দল পেলেও চোটের কারণে খেলা হয়নি মুস্তাফিজের। এবার প্লেয়ার্স ড্রাফটে মুস্তাফিজকে কিনে নেয় লাহোর কালান্দার্স। শুক্রবার প্রথম ম্যাচে মাঠে নেমেই বাজিমাত করেছেন ‘কাটার মাস্টার’। মুলতান সুলতানসের বিপক্ষে ৪ ওভারে ২২ রান দিয়ে নিয়েছেন ২ উইকেট। ২৪ বলের ১৪টিই ছিল ডট! ইনিংসের পঞ্চম ওভারে মুস্তাফিজের হাতে প্রথমবার বল তুলে দেন লাহোর অধিনায়ক ব্রেন্ডন ম্যাককালাম। বাঁহাতি পেসার প্রথম ওভারে দিয়েছেন মাত্র ৬ রান। দ্বিতীয়বার বোলিংয়ে আসেন ১১তম ওভারে। এবার প্রথম বলেই দলকে এনে দেন ব্রেক থ্রু। আহমেদ শেহজাদকে ফিরিয়ে ভাঙেন ৮৮ রানের উদ্বোধনী জুটি। লেগ স্টাম্পে মুস্তাফিজের লেংথ বল পুল করতে গিয়ে এজ হয়ে উইকেটকিপারকে ক্যাচ দেন শেহজাদ। মুস্তাফিজের বোলিং তখন ২-০-১০-১।

১৭তম ওভারে বোলিংয়ে এসে আরেক ওপেনার কুমার সাঙ্গাকারাকেও সাজঘরের পথ দেখান মুস্তাফিজ। ওভারের দ্বিতীয় বলটা ছক্কা হাঁকিয়েছিলেন সাঙ্গাকারা। পঞ্চম বলে শ্রীলঙ্কান কিংবদন্তিকে নিজের শিকারে পরিণত করেন মুস্তাফিজ। শর্ট বল পুল করতে গিয়ে লং অনে ফখর জামানকে ক্যাচ দেন ইনিংস সর্বোচ্চ ৬৩ রান করা সাঙ্গাকারা। এই ওভারে যদিও মুস্তাফিজ খরচ করেন ১০ রান। ইনিংসের ১৯তম আর নিজের কোটার শেষ ওভারে মুস্তাফিজ উইকেট না পেলেও বোলিং করেছেন দুর্দান্ত। প্রথম বলে শোয়েব মালিক নেন সিঙ্গেল। পরের দুই বলে কোনো রানই নিতে পারেননি ড্যারেন ব্রাভো। চতুর্থ বলে ২ রান। শেষ দুই বল আবার ডট!  ব্রাভোর ভাগ্য ভালো, শেষ বলে লো ফুলটসটা শুধু স্টাম্প উপড়ে নিয়ে যায়নি। ওভার শেষ হতেই ধারাভাষ্যকার রমিজ রাজা বলে দিলেন, ‘টপ কোয়ালিটি বোলিং ফ্রম মুস্তাফিজুর’।